বুধবার, ০১ জুলাই ২০১৫ ।

দার্জিলিংয়ে ভূমিধসে নিহত ৩৪

ধসে কমপক্ষে ৩৪ জন মারা গেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে মুখ্যমন্ত্রীর অফিস সূত্রে জানানো হয়েছে, বুধবার দুপুর পর্যন্ত ২৩ জনের মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। পাঁচ জন আহত এবং অন্তত ১৬ জন নিঁখোজ হয়েছেন। হতাহত এবং নিখোঁজের এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে।

বরিশালে উপ-পুলিশ কমিশনার বরখাস্ত

ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) জিললুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সাথে তাকে সিলেট রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়েছে। বুধবার বেলা ৩টার দিকে স্বারাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রেরিত ফ্যাক্স বার্তায় এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা বরিশাল পুলিশে আসে। বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার শৈবাল কান্তি চৌধরী বাংলামেইলকে জানান, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশের বিষয়টি জিললুর রহমানকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। এর আগে একই ঘটনায় জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় ১০ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তারা হলেন- সহকারি উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) আনিসুজ্জামান, মনির হোসেন ও হানিফ, নায়েক কবির হোসেন, গাড়ি চালক শহীদুল ইসলাম, বাবলু জোমাদ্দা ও দোলন বড়াল, কনস্টেবল তাপস কুমার এবং রেশন স্টোরকিপার আব্বাস উদ্দিন এবং আরিফুর রহমান। বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার শৈবাল কান্তি চৌধরী বলেন, গত বছর পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হওয়ার পরও পদোন্নতি হচ্ছিল না বিএমপিতে কর্মরত ২৩০ পুলিশ সদস্যের। পদোন্নতির আশায় ওই পুলিশ সদস্যের কাছ থেকে টাকা তুলে বরখাস্ত ১০ জন ‘ঘুষের তহবিল’ গঠন করেছিলেন। যার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন উপ-পুলিশ কমিশনার জিললুর রহমান। বিষয়টি বাংলাদেশ পুলিশের উচ্চমহলে জানাজানি হলে জড়িত ১০ পুলিশ সদস্যের বরখাস্ত আদেশ সোমবার সদর দপ্তর থেকে ফ্যাক্স যোগে বরিশালে পৌঁছে। এরপরেই তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

বাড়ি ভাড়া নির্ধারণে কমিশন গঠনের নির্দেশ

বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়াদের বিরোধ নিষ্পত্তিসহ বাসাভাড়া নির্ধারণে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন সরকারি কমিশন গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি বজলুর রহমান ও বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুসের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার এ আদেশ দেন। আদালত সময় বেঁধে দিয়ে বলেছে, আগামী ছয় মাসের মধ্যে সাত সদস্যের একটি কমিশন গঠন করতে হবে। যার নেতৃত্বে থাকবেন আইন মন্ত্রণালয়ের মনোনীত একজন আইনজ্ঞ, নগর ও গৃহায়ণ বিশেষজ্ঞ, একজন অর্থনীতিবিদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক, বাড়ি ভাড়া বিষয়ক এনজিও’র একজন প্রতিনিধি, পূর্ত মন্ত্রণালয়ের একজন প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টরা।
বাংলাদেশে ভারতীয় টেলিভিশনের সিরিয়ালের মতই জনপ্রিয় সিরিয়ালের চরিত্রগুলো। গেল বছর থেকে চালু ঈদে সেই চরিত্রগুলোর বিশেষ পোশাকের চল। বিশেষ কোনো চরিত্রের নামে নামকরণ করা হয় পোশাকের। ঈদে সিরিয়ালে আসক্ত তরুণীদের কাছে এসব পোষাকই হয়ে ওঠে প্রধান আকর্ষণ। গত বছর ঈদের জনপ্রিয় ড্রেস ছিল পাখি। এবার আরেক জনপ্রিয় সিরিয়াল ‘কিরণমালার’ কেন্দ্রীয় চরিত্র রুপকথার রাজকন্যা কিরণমালা নামের পোশাক। যারা এই সিরিয়ালটি নিয়মিত দেখেন তারা হয়তো নামটির সাথে বেশ পরিচিত হয়ে থাকবেন। গতবার স্বামী বা বাবার কাছে পাখি পোশাক না পেয়ে নারীর আত্মহত্যার মতও ঘটনা ঘটেছিল। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কিরণমালা বাজারে আসতে না আসতেই তার বায়নায় আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে।
গোয়েন্দা তথ্য এবং ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ছিনতাই ঘটনার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, এলাকা ও স্থান ভেদে রাজধানীতে ছিনতাইকারীরা বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত। এরমধ্যে রেলওয়ে কেন্দ্রিক গ্রুপের মধ্যে কিছু গ্রুপ রেলস্টেশন, ট্রেনের ভেতরে এবং কিছু রেলস্টেশনের বাইরে সক্রিয়। ব্যাংকের টাকা কিংবা ব্যাংক থেকে উত্তোলিত গ্রাহকের টাকা ছিনতাইকারী চক্রগুলো বেশ সুসংগঠিত। আবার বিকাশ কিংবা মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর এজেন্টের টাকা ছিনতাইকারীদেরও আছে পৃথক শক্তিশালী গ্রুপ। প্রাইভেটকারে চড়ে যেসব ছিনতাইকারী, সেই চক্রগুলো সাধারণত বেশি তৎপর থাকে রাতের বেলায়। তবে মোটর সাইকেল গ্রুপটি দিনে-রাতে সবসময়ই তৎপর।
সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টি-২০ সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ইনজুরির কারণে টি-২০ দলে জায়গা হয়নি পেসার তাসকিন হোসেনের। তবে দলে ফিরেছেন অফ-স্পিনার সোহাগ গাজী।
ওরাও তো মানুষ। ওদেরও ব্যথা লাগে। কষ্টে পেলে কাঁদে। ওরাও চায় খানিকটা নিরাপত্তা। কোনো রকমে বেঁচে থাকতে। ওদেরও আছে মানুষ বলে গণ্য হওয়ার খানিকটা ইচ্ছে। কিন্তু শুধুমাত্র অসহায় আর দরিদ্র বলেই ওরা কখনও মিথ্যা অপবাদের শিকার হয়। এরপর চলে নির্মম নির্যাতন। তখন শুধু তাকিয়ে দেখা আর চোখের পানি ঝরানো ছাড়া আর কিছু করার থাকে না! মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার রকিব চৌকিদার (২৩) নামে অসহায় এক গ্যারেজ কর্মচারীর ভাগ্যেও ঘটেছে এমন ঘটনা। চুরির অপবাদ দিয়ে গ্যারেজের মালিকের ভাই তাকে নিয়ে যান নির্জন এলাকার এক বাগানে। তাকে প্রথমে দঁড়ি দিয়ে বেঁধে ফেলা হয় গাছের সঙ্গে। এরপর ছ্যাঁকা দেয়া হয় গোপন অঙ্গে। অসহ্য যন্ত্রণায় চিকিৎকার করলে তার মুখে চেপে ধরা হয়। তারপর লোহার রড দিয়ে গরুপেটা শুরু করে। এক পর্যায়ে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে তারা চলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। নির্যাতিত রকিব চৌকিদার কালকিনি উপজেলার গোপালপুর এলাকার পূর্ববনগ্রামের তালেব চৌকিদারের ছেলে। গত ৭/৮ মাস ধরে তিনি কালকিনি পৌর এলাকার ফারুক সরদারের গ্যারেজে কর্মচারী হিসেবে কাজ করে আসছেন।
খুলনার কোল ঘেঁষা সুন্দরবনের রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের নাম অনুসারে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে বলা হয় ‘টাইগার বাহিনী’। যে নামের যথার্থ মান রেখেছেন খুলনা বিভাগের দামাল ছেলেরা। ওরা যেন সুন্দরবনের টাইগারের হুঙ্কার শুনে পরিণত হয়েছে এক একজন শিকারীতে। ওদের থাবায় কে বাদ যায়নি! ভারত, ইংল্যান্ড, পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড...। জাতীয় দলের এগারো ক্রিকেটারের মধ্যে খুলনা বিভাগেরই রয়েছেন পাঁচ কৃতিসন্তান। এছাড়া মহিলা ক্রিকেট দলের নেতৃত্বও দিচ্ছেন খুলনার মেয়ে সালমা খাতুন। তাই অনেকেই বলছেন, খুলনা ছাড়া মনে হয় যেন বাংলাদেশের ক্রিকেটই অচল।
প্লাটুন কমান্ডার (পিসি) ওয়ালী উল্লাহ, রাজন এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট প্লাটুন কমান্ডার (এপিসি) কবির হোসেনের চাঁদাবাজির শিকার হচ্ছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের সাধারণ আনসার সদস্যরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আনসার সদস্য জানান, টাকার বিনিময়ে হাসপাতালের বিভিন্ন স্থনে সাধারণ আনসার সদস্যের মাঝে এক সপ্তাহের জন্য স্থান বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। ঢামেক হাসপাতালের কিছু কিছু জায়গায় ডিউটি করার আগে অর্থাৎ সাপ্তাহিক ডিউটি শিফট ভাগের সময় তিন আনসার কর্মকর্তাকে চাঁদা দিতে হয়। তবে ডিউটির স্থান অনুযায়ী চাঁদার পরিমান কম-বেশি হয়। যেমন- গাইনি ওয়ার্ডে ডিউটি করতে হলে একজন আনসার সদস্যকে সপ্তাহে ১ হাজার টাকা, সিটিস্ক্যান গেটে ডিউটি করতে হলে সপ্তাহে ৫০০, এক্স-রে গেটে ডিউটি করতে হলে ৫০০, আউট ডোরে ডিউটি করতে হলে ৩০০, জরুরি বিভাগে ডিউটি করতে হলে সপ্তাহে একজন আনসার সদস্যকে ২০০০ হাজার টাকা করে দিতে হয়। এব্যাপারে পিসি ওয়ালী উল্লার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমি এখানে নতুন এসেছি, এবিষয়ে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। কে বা কারা করছে তাও

তাসকিন নেই, ফিরেছেন সোহাগ

সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টি-২০ সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ইনজুরির কারণে টি-২০ দলে জায়গা হয়নি পেসার তাসকিন হোসেনের। তবে দলে ফিরেছেন অফ-স্পিনার সোহাগ গাজী।

খুলনা ছাড়া অচল যেন বাংলাদেশের ক্রিকেট!

খুলনার কোল ঘেঁষা সুন্দরবনের রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের নাম অনুসারে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে বলা হয় ‘টাইগার বাহিনী’। যে নামের যথার্থ মান রেখেছেন খুলনা বিভাগের দামাল ছেলেরা। ওরা যেন সুন্দরবনের টাইগারের হুঙ্কার শুনে পরিণত হয়েছে এক একজন শিকারীতে। ওদের থাবায় কে বাদ যায়নি! ভারত, ইংল্যান্ড, পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড...। জাতীয় দলের এগারো ক্রিকেটারের মধ্যে খুলনা বিভাগেরই রয়েছেন পাঁচ কৃতিসন্তান। এছাড়া মহিলা ক্রিকেট দলের নেতৃত্বও দিচ্ছেন খুলনার মেয়ে সালমা খাতুন। তাই অনেকেই বলছেন, খুলনা ছাড়া মনে হয় যেন বাংলাদেশের ক্রিকেটই অচল।

আবারও জাতীয় দলের ম্যানেজার সুজন

আসন্ন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হোম সিরিজের জন্যও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ম্যানেজার হিসেবে থাকছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। যদিও তিনি এরআগে স্বল্প সময়ের জন্য এ পদে থাকতে অনীহা প্রকাশ করেছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত প্রোটিয়াদের বিপক্ষে সিরিজের জন্য তিনিই ম্যানেজার হিসেবে থাকছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান নাঈমুর রহমান দুর্জয়। উল্লেখ্য, ভারত সিরিজ শুরুর আগে ম্যানেজারের পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছিলেন সুজন। পরে বিসিবির সঙ্গে কথা বলে সেটা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন তিনি। বুধবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে এ ঘোষনা দেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের পর থেকে সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের আগে নতুন করে ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি নতুন ম্যানেজার নিয়োগ দেবে বলে জানিয়েছে বিসিবি।

জমজ সন্তান কেন হয়?

একসঙ্গে দুই বা তার অধিক সন্তানের জন্ম নতুন খবর নয়। তবে কেন একের অধিক বাচ্চা এক সময়ে গর্ভে আসে তা অনেকের মনে অনেক প্রশ্ন জাগে। চিকিৎসা শাস্ত্রের আবিষ্কারে জানা গেছে, ডিম্বানুতে সাধারণত অসংখ্য শুক্রানুর ভেতর থেকে একটি সক্ষম শুক্রানু নিষিক্ত হয়ে একটি বাচ্চা জন্ম নেয়। কিন্তু মায়ের গর্ভে কখনো সম্পূর্ণ ভিন্ন দুটি ডিম্বানু থেকে জন্ম নিতে পারে ভিন্ন দুটি শিশু। এক্ষেত্রে শিশুদের দুটি ভ্রুণ নিষিক্ত করা সক্ষম শুক্রানু দুটিও পুরো ভিন্ন ভিন্ন। টুইন বা জমজ সন্তান আবার বাইনোভুলার বা ডাইজাইগোটিক এবং ইউনিওভুলার বা মনোজাইগোটিক হতে পারে।
বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর দিকে নজর দিয়েছে জঙ্গি সংগঠনগুলো। ধর্মের নামে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের দলে ভিড়াচ্ছে তারা। এদিকে, মুক্তমনা লেখক, ব্লগারদের পর এবার এসব জঙ্গিদের টার্গেট বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা। সম্প্রতি তারা ‘মৃত্যুর জন্য তৈরি থাকো’ এ হুমকিতে চিঠি পাঠিয়েছে। এ তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য, বর্তমান উপাচার্য থেকে শুরু করে আছেন প্রক্টর ও বিভিন্ন বিভাগীয় শিক্ষকরাও। বিভিন্ন গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর নেতৃত্বের অগ্রভাগে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর সাবেক শিক্ষার্থীও রয়েছে। এরাই মূলত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নানাভাবে মগজধোলাই করছে।

জঙ্গি সহযোগী ল্যাব সহকারী, টার্গেট বুদ্ধিজীবী

অধিক যাত্রী দ্রুত পারাপার, সাশ্রয়ী, পরিবেশ বান্ধব ও আরামদায়ক সেবা নিশ্চিত করে রাজধানী ঢাকাকে যানজট মুক্ত করতে সরকারের নতুন প্রকল্প বাস র্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি)। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে সংরক্ষিত আলাদা লেনের মাধ্যমে প্রতি ঘণ্টায় ৩০ হাজার যাত্রী পারাপার হবে। স্টেশন থেকে প্রতি তিন মিনিট পর পর ছেড়ে যাবে অধিক গতিসম্পন্ন অত্যাধুনিক বাস। রাজধানীর যানজট নিরসন ও গণপরিবহন ব্যবস্থার আধুনিকায়নে গৃহীত প্রকল্পটিতে অর্থায়ন করবে বিশ্বব্যাংক। উন্নত বিশ্বে এ ব্যবস্থাটি পুরোনো হলেও বাংলাদেশে এই প্রথম।

৩ মিনিট পরপর বাস, ঘণ্টায় চলবে ৩০০০০ যাত্রী

যুবলীগ নেতা রিয়াজুল হক খান মিল্কী হত্যাকাণ্ডের অধিকতর তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি)। এর আগে মামলাটির তদন্ত ও চার্জশিট দিয়েছে র‌্যাব। কিন্তু আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী অধিকতর তদন্তে নেমে বিপাকে পড়েছে সিআইডি। গুরুত্বপূর্ণ কোনো নথিই তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি। এর মধ্যে র‌্যাবের হেফাজতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত এই মামলার প্রধান অভিযুক্ত এসএম জাহিদ সিদ্দিক তারেকের মৃত্যুকালীন জবানবন্দি, রিয়াজুলের ব্যবহৃত মোবাইলের সিজারলিস্ট এবং হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত গাড়িগুলোর মালিকানার নথি পায়নি সিআইডি। ফলে তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার এক বছরেও সিআইডি এ ব্যাপারে কোনো অগ্রগতি দেখাতে পারছে না। এ কারণে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের নথি চেয়ে র‌্যাব ও বিআরটিএকে চিঠি পাঠিয়েছে তারা।

তথ্য নেই সিআইডিতে, হোতারা সব জামিনে

মুক্তিযুদ্ধে অবিস্মরণীয় অবদানের জন্য বিদেশি বন্ধু ও সংগঠনকে দেওয়া সম্মাননা ক্রেস্টে স্বর্ণ জালিয়াতির অভিযোগের অনুসন্ধান শুরু করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কিন্তু অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র আনার পর কোনো কারণ ছাড়াই বন্ধ হয়ে গেল এই অনুসন্ধান কাজ। অনেকে মনে করছেন, ক্ষমতাসীনদের রক্ষা করা তথা দায়মুক্তি দেয়া দুদকের এখন একটা সাংস্কৃতির অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা জড়িত আমলাদের বাঁচাতে আগের সব সাংস্কৃতির পুনরাবৃত্তি মাত্র। আর এ ধরনের সিদ্ধান্ত দুদকের কার্যক্রমকে আরও প্রশ্নবিদ্ধই করবে।

কাদের স্বার্থে ক্রেস্ট জালিয়াতির অনুসন্ধান বন্ধ