সোমবার, ২৮ জুলাই ২০১৪ ( ১৩ শ্রাবণ ১৪২১ )

কর্তার বেখেয়ালে ২৫ পরিবারের ঈদ মাটি

বেশ কিছুদিন আগেই সরকার ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে বেতন ও অন্যান্য ভাতাদি দেয়ার নির্দেশনা দিলেও তার তোয়াক্কা নেই কলারোয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষের। রোববার বেতন দেয়ার কথা থাকলেও বেতন বিলে স্বাক্ষর না করে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. তওহীদুর রহমান ঢাকায় চলে গেছেন পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে। অন্যান্য উপজেলায় সিএইচসিপিরা যথারীতি বেতন-ভাতাদি উত্তোলন করতে পারলেও কেন ব্যতিক্রম শুধু কলারোয়াতে এর সদুত্তর মেলেনি।

কেবিন নেই, কেবিন আছে!

বাস্তবতা এরকম হলেও তা স্বীকার করছেন না লঞ্চের কর্মকর্তারা। তাদের দাবি, ১৫ রমজানের আগেই বিভিন্ন রুটের সব লঞ্চের কেবিন বুকিং হয়ে গেছে। শুধু তা-ই নয়, বুকিং হয়েছে লঞ্চের মাস্টার, সারেং ও স্টাফদের থাকার কেবিনও। রোববার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের অভ্যর্থনা কেন্দ্রে বসে থাকা এক যুবকের সঙ্গে কথা হয়। লঞ্চের কেবিনের টিকিট আছে কি না জানতে চাইলে তিনি ঝটপট জানালেন, সব বুকিং হয়ে গেছে। পরে একটু খাতির করে কথা বলতেই যুবকটি জানতে চান কোথায় যাবো, কত তারিখের টিকিট দরকার? কথাবার্তার এক পর্যায়ে তিনি জানালেন, ২৯ জুলাইয়ের কেবিন দেয়া যাবে।
নোটিশ

পাঠক
বাংলামেইলের নতুন পোর্টালের উন্নয়ন কাজ চলছে। এজন্য সংবাদ পড়তে মাঝে-মধ্যে সমস্যা দেখা দিতে পারে। সাময়িক এ অসুবিধার জন্য আমরা দুঃখিত।
- সম্পাদক

অক্টোবরেই বউ আনছেন মুশফিক

জাতীয় দলের অনুশীলন শেষে গত বৃহস্পতিবার ছুটি পেলেও শুক্রবার বিশ্বকাপ ট্রফি নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন জাতীয় দলের অধিনায়ক। সকালে ট্রফি হাতে ফটোসেশন শেষ করেই বাড়ির উদ্দেশ্য ঢাকা ছাড়েন মুশফিক। বর্তমানে তিনি অবস্থান করছেন বগুড়ার নিজ বাড়িতেই।

দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিন পরীক্ষা

চতুর্থ দিনে শ্রীলঙ্কার সামনে করণীয় ছিল যত দ্রুত সম্ভব রান তোলা এবং ইনিংস ঘোষণা করে দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয়া। অবশ্য অ্যাঞ্জেলা ম্যাথুসের দল দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৩.৪ ওভারে ৮ উইকেটে ২২৯ রান তুলে দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে জয়ের জন্য ৩৬৯ রানের চ্যালেঞ্জই ছুঁড়ে দিয়েছে। আলোক স্বল্পতায় চতুর্থ দিনের খেলা এক ঘণ্টা আগেই শেষ হয়। তাতে স্কোরবোর্ডে ৩৮ রান তুলতেই ওপেনার আলভিরো পিটারসেনকে হারিয়ে বসেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। পঞ্চম দিনে তাদের জিততে হলে ৯ উইকেটে আরও করতে হবে ৩৩১ রান। সঙ্গে বড় একটা পরীক্ষাও দিতে হবে। আর সেই পরীক্ষার নাম স্পিন।

ধোনিদের তাতাচ্ছে জাদেজার শাস্তি

জাদেজার পুরো বিষয়টাই ভারতীয় দলকে তাঁতিয়ে দিচ্ছে। যার প্রমাণ পাওয়া গেল ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির কথাবার্তায়। তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘আমি যদি আমার খেলোয়াড়দের বলি মাঠে তোমরা একটা কথাও বলো না। তারপরও বিষয়টা এমনই দাঁড়াবে যে, সেই মানুষটা যা-ই করুক না কেন আমাদের ম্যাচ ফি’র ৫০ শতাংশ জরিমানা দিতে হবে। তার চেয়ে বরং সেই মানুষকে গালিগালাজ করেই শাস্তি ভোগ করি। কারণ ব্যাপারটা তো তাই হলো, আমাকে অন্যর গালিগালাজ শুনতে হবে আবার জরিমানাও দিতে হবে।’
দেশের রপ্তানি আয়ের সবচে বড় এ খাতটিকে ধ্বংস করার জন্য প্রতিযোগী ও প্রতিবেশী অনেক দেশ নানামুখি ষড়যন্ত্র করে আসছে। প্রতিটি উৎসবের আগে এ খাতকে অস্থিতিশীল করতে একটি চক্র মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। দেশের স্বার্থে বিশেষ করে পোশাক খাতে নিয়োজিত প্রায় ৪৬ লাখ শ্রমিকের ভাগ্যের নিশ্চয়তা দেয়ার জন্য ষড়যন্ত্রকারীদের প্রতিহত করতে হবে। সবচে বড় কথা পোশাক শ্রমিক নেতার নামে কেউ যদি এ দেশের স্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে ভিনদেশের কথা ভেবে কাজ করে তাকে অবশ্যই দেশদ্রোহী হিসেবে সাব্যস্ত করতে হবে এবং শাস্তির মুখোমুখি করতে হবে। এমনটাই মনে করেন মান্নান কচি।

গোয়েন্দা নজরদারিতে ৫ শ্রমিক নেতা

রমজানে একজন ভিক্ষুকের প্রতিদিন গড় আয় দুই হাজার টাকা পর্যন্ত। আরও কয়েকজন ভিক্ষুকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতিদিন রাজধানীতে অন্তত ২০ কোটি টাকার ভিক্ষা বাণিজ্য হয়। পুরো মাসে যার পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় ছয়শ’ কোটি টাকা। ফার্মগেট ওভারব্রিজের নিচে বাসস্ট্যান্ডে বাবুল নামে এক মৌসুমী ভিক্ষুক জানান, তার বাড়ি রংপুরের পীরগঞ্জে। এবারই প্রথম ঢাকায় এসেছেন। তাকে ঢাকায় একটি রিকশা গ্যারেজে নাইটগার্ডের কাজের কথা বলে আনা হয়। কাজে নামানোর আগে ভিক্ষার কথা জানানো হয়েছে। প্রথমে রাজি হননি। কিন্তু কিছু করার ছিল না। এখন প্রতিদিনের ভিক্ষার অর্ধেক টাকা দিতে হয় লাইনম্যানকে।

অভিনব ভিক্ষুক সিন্ডিকেট, ঈদে আয় ৬শ কোটি টাকা

তসলিমার ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদনে সাড়া দেয়নি ভারতীয় কর্তপক্ষ। শনিবার বিকেলে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট এ কথা জানান তসলিম নাসরিন। টুইটে তসলিমা লিখেছেন, ‘এক মাস আগে ভারতে বসবাসের অনুমতির মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য আবেদন করেছিলাম। কিন্তু সরকারের কাছ থেকে এ বিষয়ে কোন সাড়া পায়নি। এ ধরনের ঘটনা এবারই প্রথম।’

তসলিমার ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি করেনি ভারত

২০০৭ সালের ২৫ অক্টোবর মাদকের দুই মামলায় ৭৯ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি আমিন হুদাকে জামিন করিয়ে দেয়ার প্রস্তাব দিয়ে ৫০ লাখ টাকা নেন সুপ্রিমকোর্টের বিএনপিপন্থি আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল। কিন্তু টাকা নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জামিন করাতে ব্যর্থ হন তিনি। এতে বেকায়দায় পড়েন ওই আইনজীবী। বিষয়টি নিয়ে আমিন হুদার প্রতিনিধি ও সুপ্রিমকোর্ট বারের নেতাদের মধ্যে দেন দরবার হয় কয়েকবার। কিন্তু তাতেও সমাধান হয়নি এ সমস্যার।

সুপ্রিমকোর্টে ঈদ অফার: টাকা দিলেই খালাস!