বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০১৫ ।

মেঘনায় ট্রলারডুবি, ৩ মৃতদেহ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জ গজারিয়া উপজেলার মেঘনা নদীতে বালুভর্তি বাল্কহেডের ধাক্কায় অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে একটি ট্রলার ডুবে গেছে। এ ঘটনার পরপরই অনেক যাত্রী সাঁতরে তীরে উঠলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছে ১৫ জন। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত এ ঘটনায় শিশুসহ ৩ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গজারিয়া থানা পুলিশের সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের কর্মী ও ডুবুরিরা উদ্ধার কাজ অব্যাহত রেখেছে। মৃতরা হলো-মুনিয়া (৪) নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মনির হোসেনের মেয়ে, অজ্ঞাত যুবক (২৬), অজ্ঞাত পুরুষ (৩৬)। বুধবার সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের বসুরচর সীমানাধীন মেঘনা নদীতে এ ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস হাসান জানান, বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ট্রলারটি মতলব উত্তর থানার বেলতলী এলাকার সোলায়মান লেংটার বার্ষিক ওরসে যাওয়ার উদ্দেশ্যে দাউদকান্দি ঘাট থেকে ৬০ জন যাত্রী নিয়ে যাত্রা করে। পথিমধ্যে বালুবাহী একটি বাল্কহেডের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ট্রলারটি ডুবে যায়। তবে কতজন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে তা জানাতে পারেনি তিনি। গজারিয়া থানার সেকেন্ড অফিসার মো. হাবিব মিয়া ঘটনাস্থল থেকে মোবাইলে জানান, নৌডুবির ঘটনায় বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত শিশুসহ ৩ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে তাৎক্ষণিক তাদের পরিচয় জানাতে পারেননি তিনি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উদ্ধার কাজ চলছে।

হাতির আক্রমণে বিজিবি সদস্যের মৃত্যু

কক্সবাজারে অভিযানে গিয়ে বন্য হাতির আক্রমণে এক বিজিবি সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাত ৩টার দিকে হিমছড়ি ও রেজু খালের মাঝামাঝি পাহাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত হাবিবুর রহমান ১৭ বিজিবির ল্যান্সনায়েক ছিলেন। তার বাড়ি ঝালাকাঠি জেলার পূর্ব চাদকাঠি এলাকায়। বিজিবির কক্সবাজার সেক্টর কমান্ডার কর্নেল খালেকুজ্জামান জানান, রাতে মালয়েশিয়ায় মানবপাচারের খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা কক্সবাজার- টেকনাফ মেরিনড্রাইভ সড়কের রেজু খালের কাছে পাহাড়ি এলাকায় অভিযানে যায়। এসময় একদল বন্যহাতি তাদের আক্রমণ করলে অন্য সদস্যরা পালাতে পারলেও হাবিবুরের রক্ষা হয়নি। হাতির আক্রমণে তিনি নিহত হন।

মেয়র বিএনপির, কাউন্সিলর জামায়াতের

ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ২০ দলের ব্যানারে সক্রিয় জামায়াতে ইসলামী। কৌশলগত কারণে মেয়র পদে জোটের প্রধান দল বিএনপিকে ছাড় দিলেও কাউন্সিলর পদে তারা কোনো প্রকার ছাড় দিতে নারাজ। একই কৌশলে গত স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে ব্যাপক সাফল্য দেখিয়েছে একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নিয়ে বিতর্কিত দলটি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনটি সিটি করপোরেশনেই নিজেদের আদর্শের কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে জোরালোভাবে মাঠে নেমেছে জামায়াত। এজন্য প্রত্যেক মহানগরী অঞ্চল, থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ে একাধিক টিম কাজ শুরু করেছে। যদিও প্রকাশ্যে তৎপরতা চালাতে না পারছে না। জামায়াতের শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতা বাংলামেইলকে জানান, গত ১৮ মার্চ নির্বাচন কমিশন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরই জামায়াতের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, তিন সিটি নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলেও মেয়র এবং কাউন্সিলর প্রার্থী দেবে তারা। এর পরপরই ঢাকা ও চট্টগ্রামের মহানগর শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা বৈঠকে বসেন। ওই বৈঠকেই মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রার্থী দেয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত হয়। এমন সিদ্ধান্তের পর মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রার্থী বাছাই সম্পন্ন করে দলটি। এই পর্যায়ে বিএনপি নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় মেয়র পদে প্রার্থী দেয়া থেকে বিরত হয় জামায়াত। তবে এককভাবে কাউন্সিলর পদে প্রার্থী দেয়ার বিষয়টি বহাল থাকে।
জেলার রায়পুরে ‘জ্বিনের’ মসজিদ। ‘অসংখ্য জ্বিন রাতের আঁধারে মসজিদটি নির্মাণ করেছিলেন বলেই হয়তো এ ধরনের নামকরণ করা হয়েছে। জনশ্রুতি আছে অসংখ্য জ্বিনি এক রাতে এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। এরপর কয়েক বছর তারা এ মসজিদে ইবাদত করেছেন বলে শোনা যায়। স্থানীয় মুরব্বিরা জানায়, গভীর রাতে জ্বিনদের জিকিরের আওয়াজ ভেসে আসতো। আবার এটাও শোনা যায় মসজিদটি তৈরিতে টাকার যোগান দিয়েছে জ্বিন। এসব কথিত জনশ্রুতির কারণে ১২৮ বছর আগের নান্দনিক স্থাপনার ‘মসজিদ-ই-জামে আবদুল্লাহ’ বর্তমানে জ্বিনের মসজিদ নামেই পরিচিতি। লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শহরের দেনায়েতপুর এলাকায় মসজিদটি ১৮৮৮ সালে ৫৭ শতাংশ জমির উপর নির্মিত হয়। ১১০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৭০ ফুট প্রস্থের এ মসজিদে রয়েছে ৩টি গম্বুজ ৪টি মিনার রয়েছে। ইটের তৈরি আদি এ স্থাপনায় মিনার, গম্বুজ ও মূল ভবন নকশায় রয়েছে শতভাগ মুন্সিয়ানা। স্থাপনার নান্দনিকতায় হৃদয় ছুঁয়ে যাবে যে কারোরই। মসজিদের তলদেশে ২০ থেকে ২৫ ফুট নিচে রয়েছে একটি গোপন ইবাদতখানা। কয়েক যুগ ধরে ওই ইবাদত খানায় জমে থাকা বুক পরিমাণ পানির কূপ দেখলে আবারো জ্বিনের গল্প নিয়ে বাড়বে কৌতুহল। মসজিদের ভিটির উচ্চতা প্রায় ১৫ ফুট। ১৩ ধাপ সিঁড়ি ডিঙিয়ে মসজিদে প্রবেশ করতে হয়। দেয়ালের প্রস্থ ৮ ফুট। সম্মুখের মিনারের উচ্চতা ২৫ ফুট। মসজিদের সামনে রয়েছে বিশাল পুকুর। পুকুরের সাথেই রয়েছেন আজান দেয়ার ২০ ফুট উচ্চতার একটি মিম্বার। এর উপরে উঠেই মোয়াজিন বা ইমান আযান দিতেন। মসজিদের ২০ থেকে ২৫ ফুট তলদেশে থাকা পাকা গোপন ইবাদতখানায় প্রতিষ্ঠাতা মৌলভী আবদুল্লাহ সাহেব আল্লাহর ধ্যানে মগ্ন থাকতেন। তার মৃত্যুর ক’বছর পর ওই কক্ষ পানিভর্তি কূপে পরিণত হয়। এ কূপে ঢুকতে মসজিদের দক্ষিণ পাশে রয়েছে পাকা সিঁড়ি। বার মাস এ কূপে কম বেশি পানি থাকা নিয়ে দর্শনার্থীদের কৌতুহল বেশি। দর্শনার্থীদের কেউ কেউ রোগ শোক থেকে মুক্তি পেতে ওই পানি নিয়ত মানত করে পান করে থাকেন। কথিত আছে, মসজিদ তৈরিতে জ্বিন নিয়ে এমন গল্পের সত্য মিথ্যা আর যাই থাকুক প্রতিদিন প্রাচীন দৃষ্টিনন্দন এ স্থাপনা দেখতে দর্শনার্থীরা আসেন মসজিদ প্রাঙ্গণে। আগতদের অনেকেই বিভিন্ন নিয়ত ও মানত করে এ মসজিদ দেখতে আসেন। অনেকেই মনের বাসনা পূর্ণ করতে মসজিদে আদায় করেন নামাজ। ১৮২৮ সালে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন মাওলানা আবদুল্লাহ। তিনি ভারতের দারুল উলূম দেওবন্দ মাদরাসায় দীর্ঘ ১৭ বছর পড়াশুনা করেন। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ওই ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে তিনি উচ্চতর দ্বিনি শিক্ষালাভ করে দেশে ফিরে এসে নিজ এলাকায় মসজিদ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি ভারতের দিল্লীর শাহী জামে মসজিদের হুবহু নমুনায় ১৮৮৮ সালে এ মসজিদ ও মসজিদের পাশে প্রতিষ্ঠা করেন একটি কওমি মাদরাসা ও মুসাফিরখানা। মসজিদের স্থাপনার এক তৃতীয়াংশ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার পর তার মৃত্যু হলে পরবর্তীতে তার ছেলে মাওলানা মাহমুদ উল্যা মসজিদের অসমাপ্ত কাজ শেষ করেন। বর্তমানে মাদরাসাটি চালু থাকলেও মুসাফিরখানা বন্ধ রয়েছে। মসজিদটি জ্বিনের মসজিদ হিসেবে পরিচিত থাকলেও এটি মূলত মাওলানা আবদুল্লাহ নির্মাণ করেছেন এবং জনশ্রুতিগুলোর কোনো বাস্তব ভিত্তি নেই বলে জানিয়েছেন আবদুল্লাহ সাহেবের নাতি শফিক উল্যা মাহমুদী। মসজিদ দেখতে আসা ঢাকা খিলক্ষেতের বাসিন্দা ফরহাদ ও ইকবাল হোসেন জানান, তিনি ছোটবেলা থেকে তার বাবা মায়ের কাছে এ জ্বিনের মসজিদের কথা শুনে আসছেন। কারুকাজেমণ্ডিত এ সুন্দর স্থাপনা দেখে তিনি মুগ্ধ ও বিস্মিত। মসজিদের ইমাম লুৎফর রহমান আবু বকর জানান, মসজিদে ৬টি লাইনে ৮০ থেকে ৮৫ জন করে ৫ শতাধিক মুসল্লি শুক্রবার জুমার নামাজ আদায় করেন। এতে এলাকার ও দূর দূরান্তের মুসল্লিরা অংশ নেন। মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাজী আবদুল খালেক জানান, প্রাচীন ও নান্দনিক এ স্থাপনাটি জেলার উল্ল্যেখযোগ্য প্রধান স্থাপনাগুলোর মধ্যে একটি। সরকারিভাবে অনুদান না পাওয়ায় জেলার ঐতিহ্যবাহী এ মসজিদ সংস্কার করা যাচ্ছে না। সংস্কারের অভাবে ১২৮ বছরের আগের এ স্থাপনা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে একটি মিনারও নষ্ট হয়ে গেছে।
ডালনি ভস্তক নামের ট্রলারটি বুধবার কামচাটকার ক্রুতোগোরোভস্কি বসতি থেকে ৩৩০ কিলোমিটার দূরের ওকোতস্ক সাগরে ডুবে যায় বলে বিবিসি জানিয়েছে। এই দুর্ঘটনায় ৪৩ জন মারা গেছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। ইতিমধ্যে উদ্ধার করা হয়েছে আরো ৬৩ জনকে । এদের অধিকাংশই তাপমাত্র জনিত সমস্যায়(হাইপোথারমিয়া) ভুগছেন বলে জানা গেছে।
ক্যালিফোর্নিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘সেন্টার ফর বাংলাদেশ স্ট্যাডিজ’ নামে একটি গবেষণা কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। গত সোমবার ‘সুবীর অ্যান্ড মালিনী চৌধুরী সেন্টার ফর বাংলাদেশ স্ট্যাডিজের’ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। চ্যান্সেলর নিকোলাস ডার্কসের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদ। লস এঞ্জেলেসের প্রবাসী সুবীর চৌধুরী সেন্টারটি প্রতিষ্ঠায় তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে গত বছর ফেসবুকে একটি বার্তা পোস্ট করলে প্রচুর সাড়া মেলে। সুবীর চৌধুরীর মিলিয়ন ডলারের সহায়তায় সেন্টারটি প্রতিষ্ঠিত হয়। আর সে কারণেই তার এবং তার স্ত্রী মালিনী চৌধুরীর নামেই এর নামকরণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ স্ট্যাডিজ সেন্টারের সঙ্গে যেসব বিশ্ববিদ্যালয় সহযোগী হিসেবে কাজ করবে সেগুলোর মধ্যে ব্র্যাক অন্যতম। সেন্টারটির পরিচালক হিসেবে রয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ড. সঞ্চিতা বি সাক্সেনা। তিনি দক্ষিণ এশিয়ার আর্থ-সামাজিক গবেষক দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।
স্বামীর সঙ্গে সহমরণে গেলেন ভারতের মহারাষ্ট্রের এক নারী। তার নাম ঊষা (৫০)। যদিও তিনি স্বেচ্ছায় সহমরণে গেছেন কি না এ নিয়ে দেখা দিয়েছে সন্দেহ। কারণ তিনি অতিশয় অসুস্থ ও দুর্বল ছিলেন। কীভাবে তিনি চিতার আগুনে ঝাঁপ দেয়ার শক্তি পেলেন তা-ই বুঝতে পারছে না মহারাষ্ট্রের পুলিশ। এ ঘটনা ঘটেছে গত মঙ্গলবার মহারাষ্ট্রের লাতুর জেলার লোহাটা গ্রামে। আর বৃহস্পতিবার এ খবর প্রকাশ করেছে পশ্চিমবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকা। পত্রিকাটি লিখেছে, ঊষার এ ঘটনা ১৯৮৭ সালের ৪ সেপ্টেম্বর রাজস্থানের শিকার জেলার দেওরালা গ্রামে স্বামীর সঙ্গে সহমরণে যাওয়া আঠারো বছরের রূপ কানোয়া নামের তরুণীর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছে ভারতকে। কারণ রূপ কানোয়াকে জোর করেই চিতায় তুলে দেয়া হয়েছিল বলে পরে খবর বেরিয়েছিল। এবং তা নিয়ে রীতিমতো তুলকালাম কাণ্ড ঘটে গিয়েছিল ভারতবর্ষে।
ছোটবেলা থেকেই তামান্নার স্বপ্ন ছিল পাইলট হওয়ার। সেই ইচ্ছে থেকেই তিনি এসেছিলেন বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমিতে। একদিন বড় পাইলট হবেন এই ছিল স্বপ্ন। কিন্তু আজ সেই স্বপ্নের ইতি ঘটলো। বুধবার দুপুরে রাজশাহীর শাহ মখদুম বিমানবন্দরে প্রশিক্ষণ বিমান দুর্ঘটনায় নিহত কো-পাইলট তামান্না রহমান হৃদি সম্পর্কে এভাবেই বলছিলেন ফ্লাইং একাডেমি অ্যান্ড জেনারেল এভিয়েশন লিমিটেডের ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক। নিহত তামান্না ফেরদৌস হৃদি টাঙ্গাইলের মীর্জাপুর উপজেলার সিভিল সার্জন ডা. আনিসুর রহমানের মেয়ে। সন্ধ্যায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তামান্নার লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।
নাটোরের বাগাতিপাড়ায় প্রধান শিক্ষকের বদলির খবরে আবেগে জ্ঞান হারালো প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৬ শিক্ষার্থী। স্থানীয় গ্রামীণ কল্যাণ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে তাদের চিকিৎসা দেয়া হয়। বুধবার দুপুর ১২ টায় জাতীয় সংগীতের সময় শিক্ষার্থীদের কাছে প্রধান শিক্ষক তার বদলির খবর জানিয়ে বিদায় নেন। প্রিয় শিক্ষকের মুখে বিদায়ের সুর শুনে কান্নায় ভেঙে পড়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। এরপরেই একের পর এক জ্ঞান হারায় তারা। কর্তৃপক্ষ সূত্রমতে, বাগাতিপাড়া উপজেলার বাঁশবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে পাঁচ বছর ধরে কর্মরত রয়েছে আলহাজ্ব মো. মতিনুল হক। গত ৩০ মার্চ রাজশাহী বিভাগীয় শিক্ষা অফিসের বিভাগীয় উপ-পরিচালক আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত এক আদেশে শিক্ষক মতিনুল হককে পাশ্ববর্তী জিগরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি করা হয়। মঙ্গলবার উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে ওই আদেশের কপি প্রধান শিক্ষককের হাতে দেয়া হয়। বদলির খবরটি বুধবার দুপুর ১২ টায় জাতীয় সংগীত গাওয়ার সময় শিক্ষার্থীদের কাছে প্রধান শিক্ষক তার বিদায় নেয়ার কথা জানান। এ খবর পাওয়ার পরপরই কান্নায় ভেঙে পড়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।
দল ম্যাচ জয় পরাজয় ড্র পয়েন্ট
নিউজিল্যান্ড ১২
অস্ট্রেলিয়া
শ্রীলংকা
বাংলাদেশ
ইংল্যান্ড
আফগানিস্তান
স্কটল্যান্ড
দল ম্যাচ জয় পরাজয় ড্র পয়েন্ট
ভারত ১২
দক্ষিণ আফ্রিকা
পাকিস্তান
ওয়েস্ট ইন্ডিজ
আয়ারল্যান্ড
জিম্বাবুয়ে
আরব আমিরাত

প্রশ্নের মুখে ভারতের বাংলাদেশ সফর

এন শ্রীনিবাসনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি এবং অন্যায়ের অভিযোগ এনে আইসিসি সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেই ক্ষ্যান্ত হননি আ হ ম মুস্তফা কামাল, একইসঙ্গে ভারতের এই বিতর্কিত ক্রিকেট কর্মকর্তাকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেছেন। তার মতো নোংরা মানুষের নাম মুখেও আনতে পারছেন না বলে অস্ট্রেলিয়া থেকে ঢাকায় ফেরার পর মন্তব্য করেছিলেন মুস্তফা কামাল। আইসিসি থেকে মুস্তফা কামালের পদত্যাগের বিষয়টি বিশ্ব মিডিয়ায় খুব গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরে। অধিকাংশই মুস্তফা কামালের মন্তব্যসহ সংবাদটি প্রচার করে। ভারতীয় মিডিয়াও এর বাইরে নয়। তবে, কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা মুস্তফা কামালের পদত্যাগ এবং তার করা তীব্র ভাষায় মন্তব্যগুলোর জের ধরে ভারত-বাংলাদেশ ক্রিকেট সম্পর্কে কোন প্রভাব পড়বে কি না, তা নিয়েও একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে।

স্মিথের চোখে মাহমুদুল্লাহও সেরা

বিশ্বকাপে খেলেছেন অসাধারণ। টানা দুটি সেঞ্চুরি করে নাম লিখিয়েছেন রেকর্ড বুকে। বাংলাদেশের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের প্রশংসা করেছেন ক্রিকেটের অনেক রথি-মহারথি। এবার তাদের সঙ্গে যোগ দিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক গ্রায়েম স্মিথও। তার মতে বিশ্বকাপের সেরা ১০টি মুহুর্তের একটি ছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাহমুদুল্লাহর সেঞ্চুরি এবং একই ম্যাচে বাংলাদেশের বিজয় উদযাপন। আইসিসির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গ্রায়েম স্মিথের বিশেষ লেখায় দুজনের ব্যাটিংয়ের ভীষণ প্রশংসা করেছেন। একজন টানা চার সেঞ্চুরি করা সাঙ্গাকারা, অন্যজন মাহমুদউল্লাহ।

সেমিফাইনাল খেলতে চাননি ডি’ভিলিয়ার্স?

দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটে বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ নতুন নয়।‌ অনেকে বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা দলে নাকি ‘কোটা সিস্টেম’ চালু আছে। কী সেটা? প্রথম এগারোয় কতজন কৃষ্ণাঙ্গ ও কতজন শ্বেতাঙ্গ ক্রিকেটার থাকবে, তা আগে থেকে ঠিক করা থাকে। কিন্তু বিশ্বকাপে যে এমন কিছু হতে পারে, তা কে ভেবেছিল! সে দেশের সংবাদমাধ্যমের খবর বর্ণবৈষম্যের জন্য সেমিফাইনাল থেকে নিজের নাম তুলে নিতে চেয়েছিলেন অধিনায়ক এ বি ডি’ভিলিয়ার্স। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে কাইল অ্যাবটের জায়গায় দলে নেওয়া হয় চোট সারিয়ে ফেরা ফিল্যান্ডার।

নতুন দুই শিশুতোষ চলচ্চিত্রের জন্য অনুদান

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর তত্ত্বাবধানে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করবেন আবু সাঈদ এবং সুমনা সিদ্দিকী। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি পাঁচটি শিশুতোষ চলচ্চিত্র নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেয়।

বৈশাখী ভোজে গরম ভাতে নানান ভর্তা

বৈশাখী ভোজের মহা ভূমিকায় থাকে ইলিশ-পান্তা, সহকারী ভূমিকায় নানান পদের ভর্তা। পান্তা হোক আর গরম ভাত হোক ভিন্ন স্বাদের ভিন্ন সব ভর্তায় থাকে বাঙালিয়ানা আদি খাওয়ার তৃপ্তি। এইদিন বিশেষ পোশাক আর ভোজে বাঙালি যেন হালনাগাদ করে নিজেস্ব জাতিসত্ত্বায়। তাই ঘরে হোক আর বাইরে হোক পহেলা বৈশাখে মজাদার এসব খাবারের স্বাদ নিতে কেউ ভুলে যায় না। হাতে আছে মাত্র কটা দিন, আজই শিখে নিন নানান পদের ভর্তা রেসিপি।
ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ২০ দলের ব্যানারে সক্রিয় জামায়াতে ইসলামী। কৌশলগত কারণে মেয়র পদে জোটের প্রধান দল বিএনপিকে ছাড় দিলেও কাউন্সিলর পদে তারা কোনো প্রকার ছাড় দিতে নারাজ। একই কৌশলে গত স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে ব্যাপক সাফল্য দেখিয়েছে একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নিয়ে বিতর্কিত দলটি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনটি সিটি করপোরেশনেই নিজেদের আদর্শের কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে জোরালোভাবে মাঠে নেমেছে জামায়াত। এজন্য প্রত্যেক মহানগরী অঞ্চল, থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ে একাধিক টিম কাজ শুরু করেছে। যদিও প্রকাশ্যে তৎপরতা চালাতে না পারছে না। জামায়াতের শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতা বাংলামেইলকে জানান, গত ১৮ মার্চ নির্বাচন কমিশন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরই জামায়াতের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, তিন সিটি নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলেও মেয়র এবং কাউন্সিলর প্রার্থী দেবে তারা। এর পরপরই ঢাকা ও চট্টগ্রামের মহানগর শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা বৈঠকে বসেন। ওই বৈঠকেই মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রার্থী দেয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত হয়। এমন সিদ্ধান্তের পর মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রার্থী বাছাই সম্পন্ন করে দলটি। এই পর্যায়ে বিএনপি নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় মেয়র পদে প্রার্থী দেয়া থেকে বিরত হয় জামায়াত। তবে এককভাবে কাউন্সিলর পদে প্রার্থী দেয়ার বিষয়টি বহাল থাকে।

মেয়র বিএনপির, কাউন্সিলর জামায়াতের

ভারতে ইলিশ দিয়ে ফেনসিডিল আনার মতো বিনিময় বাণিজ্য প্রচলিত আছে অনেক আগে থেকেই। এখন মায়ানমার থেকে আসা ইয়াবা ট্যাবলেট বাংলাদেশ হয়ে ভারতে যাচ্ছে। বিনিময়ে আসছে অস্ত্র ও ফেনসিডিলের চালান। মাদক চোরাকারবারিরা এখন এভাবেই মাদক ও অস্ত্র ব্যবসা একসঙ্গে করছে। গোয়েন্দাদের তৎপরতায় এই বিনিময় বাণিজ্যের কৌশল ধরা পড়েছে। সম্প্রতি রাজধানীর ডেমরা এলাকা থেকে লক্ষাধিক পিস ইয়াবাসহ সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ী চক্রের দুই সদস্যকে আটক করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এটি রাজধানীতে উদ্ধার হওয়া ইয়াবার সবচেয়ে বড় চালান। এদের চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে মাদক পাচারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে গোয়েন্দারা। ডিবি পুলিশের একজন কর্মকর্তা বাংলামেইলকে জানান, দীর্ঘদিন ধরে মায়ানমার থেকে টেকনাফ হয়ে অবৈধভাবে ইয়াবা দেশে ঢুকছে। চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার সুযোগ নিয়ে গত দুই মাসে দেশে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা মায়ানমার থেকে এসেছে।

বিনিমিয় বাণিজ্য: যাচ্ছে ইয়াবা আসছে অস্ত্র

আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন ঘিরে রাজধানীতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি খারাপ হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে উঠতি সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করে ফায়দা নিতে পারে মাঠপর্যায়ের রাজনৈতিক নেতারা। তালিকাভূক্ত সাত শতাধিক উঠতি সন্ত্রাসী এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। এমন শঙ্কা এবং চলমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বিবেচনা করে অপরাধীদের গ্রেপ্তার করতে ‘ব্লকরেইড’ অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাত থেকে ঢাকার আটটি ক্রাইম জোনে কঠোর গোপনীয়তার সঙ্গে এ অভিযান শুরু হয়েছে। এ অভিযানের সন্দেহভাজনদের পাশাপাশি ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্তদের কোনো ব্যক্তি নির্বাচনে প্রার্থী অথবা নির্বাচনী প্রচারণা কাজে অংশ নিলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্তদের মধ্যে মেয়র পদে মনোনয়ন কিনেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহনগরের আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল আওয়াল মিন্টু, দলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম। এছাড়া কাউন্সিলর পদে মনোনয়নপত্র কিনেছেন বিএনপি-জামায়াতের শতাধিক নেতা। যাদের বিরুদ্ধেও রয়েছে ফৌজদারি মামলা।

আব্বাস-মিন্টুদের ঠেকাতে ‘ব্লকরেইড’ অভিযান!

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) মালয়েশিয়া বিষয়ক সেল সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালে চুক্তি স্বাক্ষরের পর ১০ লাখ লোকের চাহিদাপত্র পাঠিয়ে তা সফলভাবে সম্পন্ন করতে পারলে ক্রমান্বয়ে আরও ৫ লাখ লোক নেয়ার আশ্বাস দেয় মালয়েশিয়ান সরকার। এজন্য ২০১৩ সালে নিবন্ধন করেন ১৪ লাখ ৪২ হাজার ৭৭৬ জন। নিবন্ধনকারীদের মধ্যে প্রাথমিকভাবে ৩৬ হাজার ৩৮ জনকে নির্বাচিত করা হয়। নির্বাচিতদের তিন ভাগে ভাগ করে ২৩ জানুয়ারি প্রথম দফায় পাঠানোর জন্য লটারিতে ১১ হাজার ৭৫৮ জনের যাবতীয় কাগজপত্র তৈরি করা হয়। এরপর আরও দুই ধাপে ২৪ হাজার ২৪০ জনের কাগজপত্র তৈরি করে মালয়েশিয়া পাঠায় বিএমইটি। প্রথম দফায় কাগজপত্র পাঠানো লোকদের মধ্যে ওই বছরের এপ্রিলে ১৯৮ জন শ্রমিককে মালয়েশিয়া পাঠানোর মাধ্যমে শুরু হয় দেশটিতে জনশক্তি রপ্তানি। এরপরই শুরু হয় ধীরে চলো নীতি। বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে চাপ দিলে দুই বছরে মাত্র সাড়ে ৭ হাজার ভিসা দেয় তারা। তবে ২০১৩ সালের এপ্রিলে পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হলেও ২০১৫ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত সর্বমোট ৭ হাজার ১৬৬ জন কর্মী নিয়েছে তারা।

ঝুলে গেল ১৪ লাখ মানুষের ভাগ্য