রোববার, ২১ ডিসেম্বর ২০১৪ ।

ঢাকায় হচ্ছে ১০০ তলার মিডিয়াপল্লী

রাজধানীর কাওরান বাজারে নির্মাণ করা হবে করপোরেট ও মিডিয়াপল্লী। এজন্য একটি পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। নগরীর সার্বিক উন্নয়নের মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে এ পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী সেখানে ৮ থেকে ১০টি বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে। ভবনগুলো হবে স্টিলের কাঠামোর ওপর অত্যাধুনিক কাচ মোড়ানো। ডিএনসিসির কর্মকর্তারা জানান, রাজধানীতে বড়ধরনের কোনো করপোরেট ও মিডিয়াপল্লী নেই। তাই কাওরান বাজারের কাঁচাবাজার এলাকার ২৩ দশমিক ৫৮ বিঘা জমির উপর ৮ থেকে ১০টি বহুতল ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। দেশি-বিদেশি বড় বড় করপোরেট প্রতিষ্ঠান ও মিডিয়া হাউজকে কার্যালয় বানানোর জন্য ফ্লোর বরাদ্দ দেয়া হবে। এরই মধ্যে ওই এলাকার কাঁচামালের ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় ১২ বাংলাদেশি শ্রমিক গ্রেপ্তার

অবৈধভাবে কাজ করার সময় ১২ বাংলাদেশি শ্রমিকসহ ৫৫ বিদেশিকে গ্রেপ্তার করেছে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন পুলিশ। শুক্রবার পেনাংয়ের পাদাং লালাং সড়কের একটি মাছের আড়ৎ থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। মালেয়শিয়ার দৈনিক দ্য স্টার এ তথ্য জানিয়েছে। অবৈধ শ্রমিকদের গ্রেপ্তারে গত শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে শুরু হয় অপারেশন বেরসেপাদু। জালান পাদাং লালাংয়ের বুকিত মিরতাজাম পাইকারি মাছ বিক্রি অ্যাসোসিয়েশনের মার্কেটে অবৈধভাবে কাজ করার অভিযোগে ওই শ্রমিকদের গ্রেপ্তার করা হয়। মধ্যে নেপাল ও মিয়ানমারের নাগরিকও রয়েছে।

অবৈধ সরকার তাসের ঘরের মতো ভেঙে যাবে

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘২০ দলের নেতৃত্বে জনগণের আন্দোলনে অবৈধ সরকার তাসের ঘরের মতো ভেঙে যাবে।’ রোববার সন্ধ্যায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার ইনিস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধদল আয়োজিত মুক্তিযুদ্ধাদের এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটি পন্থা খোঁজে বের করতে দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছি। এর মধ্যে একবছর চলে গেছে। মানুষের অবস্থা ও দেশের পরিস্থিতি দিনদিন খারাপ হচ্ছে। জনগণের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। কিন্তু আমাদের শান্তিপূর্ণ আহ্বানে তারা সারা দেননি। তাই আমাদের বসে থাকার আর কোনো সুযোগ নেই।’ খালেদা বলেন, ‘দেশের জনগণ আন্দোলন, পরিবর্তন চায়। তারা
অ্যাঞ্জেলিনা জোলির ওয়ান্টেড সিনেমার কথা ভাবুন। কীভাবে পিস্তল থেকে বেরিয়ে যাওয়া বুলেট স্পিন করে বাঁকা পথে গিয়ে আঘাত হানে! এটা এখন আর সিনেমার সিনেমাটিক দৃশ্য নয়, বাস্তব! ছোড়ার পর মধ্যপথে প্রয়োজন মতো গতিপথ পরিবর্তন করবে এমন ‘স্মার্ট’ বুলেটের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে মার্কিন সেনাবাহিনী। এর ফলে ঝড়োহাওয়া কিংবা ধুলিঝড়ের মতো বৈরী পরিবেশেও সেনাদের পক্ষে লক্ষ্যভেদ করা সম্ভব হবে।
‘দয়া করে আলোটা নিভিয়ে দিন। আমার ভাই একটু আগেই ঘুমিয়েছে’। হাসপাতালের সাত নম্বর ওয়ার্ড যেখানে অনেক আহত শিশুকে রাখা হয়েছে তার আলো জ্বালতেই ওয়াকার আমিন নামের একজন এই কথাগুলো আমাদের উদ্দেশ্যে বললেন। কথাগুলো খুব সাধারণ হলেও এর মাঝে কিছু একটা ছিল, যে কারণে আমরা লাইট বন্ধ করে চলে গেলাম।
ব্রিটিশ নাগরিক কেইট কাওয়ার কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার গড়বিশুদিয়া গ্রামের যুবক লন্ডন প্রবাসী ব্যারিস্টার ইবনে রহিমকে বিয়ে চলে এলেন বাংলাদেশে। রোববার বেলা সোয়া ২টার দিকে সাউথ এশিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি হেলিকপ্টারে লন্ডনী নববধূ নামলেন গড়বিশুদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে। লন্ডনী নববধূর আগমনের খবরে আশপাশের কয়েক গ্রামের মানুষ ভিড় জমায় স্কুল মাঠে। পরিস্থিতি সামাল দিতে গলদঘর্ম হতে হয় পুলিশকে। এতে পুরো এলাকায় সৃষ্টি হয় চাঞ্চল্যের। গ্রামবাসী জানায়, কয়েকদিন আগে লন্ডনের অভিজাত একটি হোটেলে গড়বিশুদিয়া গ্রামের অ্যাডভোকেট আব্দুল রহিমের লন্ডন প্রবাসী ছেলে ব্যারিস্টার মেহেদী ইবনে রহিমের সঙ্গে ব্রিটিশ নাগরিক কেইট কাওয়ারে বিয়ে হয় জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে। রোববার ছিল বরের বাড়িতে বৌভাত। এ উপলক্ষে আশপাশের কয়েক গ্রামের মানুষকে নিমন্ত্রণ করা হয়। দুপুরে হেলিকপ্টারে করে নববধূকে নিয়ে বিদ্যালয় মাঠে পৌঁছায় বর মেহেদী। এদিকে, হেলিকপ্টারে লন্ডনি নববধূ আসার খবর শুনে তাদের এক নজর দেখার জন্য হাজার হাজার উৎসুক জনতা সকাল থেকেই স্কুল মাঠে ভিড় জমায়। এ সময় পুরো এলাকায় আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।
ডা. শামারুখ মাহজাবিন সুমির ছবি ধরে গলার দু’পাশে আঘাতের দাগ দেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইস ইস করে আপসোস করেছেন। প্রধানমন্ত্রী এসময় ‘নিহত’ ডা. সুমির বাবাকে বলেন, ‘এমন ঘরে মেয়ে বিয়ে দিলেন কেন?’ রোববার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে মেয়ের ‘হত্যাকাণ্ডে’ ও পুনঃময়নাতদন্তের রিপোর্ট সংক্রান্ত সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বাবা (ডা. সুমির বাবা) প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম এতথ্য জানান। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘১৫ ডিসেম্বর রাত ৮টা ৫০ মিনিটে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার স্বাক্ষাতের সুযোগ হয়। তিনি সাড়ে ১০ মিনিট আমাদের কথা শুনেছেন। তিনি ডা. সুমির ছবি হাতে নিয়ে চারটি প্রশ্ন করেন। প্রথম প্রশ্ন ছিলো ‘এমন ঘরে মেয়ে বিয়ে দিলেন কেন?’। এরপর তিনি আরও তিনটি পশ্ন করেন। সর্বশেষ প্রশ্নে তিনি পোস্টমোর্টেম রিপোর্টে কী অবস্থা জানতে চান। এসময় প্রধানমন্ত্রী ধৈর্য ধরে আমাদের কথা শুনেছেন এবং রেফারেন্স হিসেবে ৭১ পৃষ্ঠার একটি ফাইল দেখেন।’ প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে খোঁজখবর রাখছেন এবং ন্যায্য বিচারের আশ্বাস দিয়েছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রীর দু’চোখে দুফোটা জল দেখতে পেয়েছি।
ওপরে দিগন্ত বিস্তৃত নীল আকাশ। নিচে দৃষ্টি নন্দন লেক আর সবুজ অরণ্য। ঠিক এই দু’য়ের মাঝখানে ভূমি থেকে প্রায় দুইশ ফুট উচ্চতায় যদি বসে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়া যায়! বাতাসের ওপর ভেসে এক পাহাড় থেকে অন্য পাহাড়ে যাওয়া যায়! এমন সময় যদি আপনার চোখের সামনে দিয়ে উড়ে যায় বক, টিয়া কিংবা শঙ্খ চিল। যদি দেখা মেলে গাছে গাছে বানরের দুষ্ট-মিষ্টি লাফালাফি! তাহলে আপনার অনুভূতিটা কেমন হতে পারে?
সর্ষের ভেতর ভূত- এই পুরনো আপ্তবাক্যটি যেন বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি বা বিআরটিএ’র সমার্থক। সর্ষের মধ্যে ভেজাল থাকলে ভূত তাড়াতে সেই সর্ষে যেমন কাজ হয় না, ঠিক একই অবস্থা বিআরটিএ’র। এখানে দালাল ছাড়া কোনো কাজ প্রায় অসম্ভব। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীও স্বীকার করেন তার এই দপ্তরের দুর্নীতির কথা। কেন থামছে না বিআরটিএ’র দুর্নীতি বা দালালদের দৌরাত্ম? বাংলামেইলের পক্ষ থেকে সরেজমিনে এ বিষয়ে চালানো হয় অনুসন্ধান। দেখা যায়, এখানকার কর্মকর্তারাই নিয়োগ দিচ্ছেন দালালদের! যারা তাদের হয়ে ‘কাজ’ করছে মাঠপর্যায়ে।

১০০ মাইল গতিতে বল করলেন শোয়েব

প্রতিযোগিতা তাদের দু’জনের মধ্যে শুরু হয়েছিল আরও বেশ কিছু দিন আগে থেকে। বিশ্বের সবচেয়ে গতিময় পেসার কে? অস্ট্রেলিয়ার ব্রেট লি বলেন আমি। পাকিস্তানের শোয়েব আখতার বলেন, না আমি। শোয়েব আখতার নিজের পক্ষে প্রমানও হাজির করেছিলেন। ২০১২ সালে নিউজিল্যান্ড সফরে ১০০.৪ মাইল গতিতে বল করেছিলেন তিনি। কিন্তু অফিসিয়ালি তার এই গতির রেকর্ডটি স্বীকার করা হলো না। এ সুযোগে বিতর্কটা আরও বেশি দানা বেধে ওঠে, ব্রেট লি সেরা না শোয়েব আখতার সেরা। শ্রেষ্ঠত্বের আসনটা নিজের জন্য করে নিতে মরিয়ে হয়ে ওঠেন শোয়েব আখতার। ২০০৩ বিশ্বকাপকে তাই তিনি বেছে নিলেন, নিজের সামথ্য প্রমানের জন্য। দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেটও গতির রাজ্য। সুতরাং, শোয়েবের জন্য আদর্শ একটি ‍টুর্নামেন্ট।

টেস্টে-টি২০তে শীর্ষে, ওয়ানডেতে দুইয়ে সাকিব

আইসিসিরি টেস্ট ও টি২০ অলরাউন্ডারদের র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান ফিরে পেয়েছেন বিশ্বসেরা সাকিব আল হাসান। সাথে ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়েও একধাপ এগিয়ে তিনি উঠে এসেছেন দ্বিতীয় স্থানে। রোববার আইসিসির কর্তৃক প্রকাশিত ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে দেখা গেলে সাকিবের এই অবস্থান।

এশিয়ার সেরা দশে সানজিদা

তিন মাসে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছে এএফসি অনুর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ। বাছাইয়ে ভারত ও ইরানেকে টপকিয়ে শীর্ষ দল হিসেবে কোয়ালিফাই করার স্বপ্নও দেখেনি বাংলাদেশ। তবে জর্দানকে হারিয়ে দুর্দান্ত সূচনা ও আরব আমিরাতের বিপক্ষে জয়ে সেই স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বাংলাদেশ। পরে চূড়ান্ত পর্বে সুযোগ করতে না পারলেও ইরান ও ভারত দলকে মাঠে ভুগিয়েছে তারা। আর সেই লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিয়ে সবার নজর কেড়েছেন ময়মনসিংহের কিশোরি সানজিদা আক্তার। আর তার অসাধারণ নৈপুণ্য এড়ায়নি এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনেরও। এএফসি অনুর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে এশিয়ার সেরা ১০ ফুটবলার বাছাই করেছে এএফসি। আর সেই তালিকায় নাম ওঠেছে বাংলাদেশের এ উইঙ্গার। সেরা দশ জনের তালিকায় সানজিদা আছেন ৭ নম্বরে।

পুনরুজ্জীবিত হচ্ছে সালমান হত্যা মামলা

বাংলা চলচ্চিত্রের ক্ষণজন্মা নায়ক চৌধুরী মোহাম্মাদ ইমন ওরফে সালমান শাহ (২৫) হত্যা মামলাটি পুনরুজ্জীবিত হচ্ছে। দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে ঢাকা সিএমএম আদালতে ডিপফ্রিজে থাকা মামলাটির বিচার বিভাগীয় তদন্ত চলেছে। সুদীর্ঘ তদন্তের পর সম্প্রতি ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট এমদাদুল হক অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। ওই প্রতিবেদনের বিষয়ে গত ৮ ডিসেম্বর সালমান শাহর মা নিলুফার চৌধুরী ওরফে নীলা চৌধুরীকে ২১ ডিসেম্বর আদালতে হাজির হতে নোটিশ দেয়া হয়। ওই নোটিশ পেয়েই রোববার তিনি আদালতে হাজির হন।

যেখানে হারিয়ে যেতে নেই মানা

ওপরে দিগন্ত বিস্তৃত নীল আকাশ। নিচে দৃষ্টি নন্দন লেক আর সবুজ অরণ্য। ঠিক এই দু’য়ের মাঝখানে ভূমি থেকে প্রায় দুইশ ফুট উচ্চতায় যদি বসে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়া যায়! বাতাসের ওপর ভেসে এক পাহাড় থেকে অন্য পাহাড়ে যাওয়া যায়! এমন সময় যদি আপনার চোখের সামনে দিয়ে উড়ে যায় বক, টিয়া কিংবা শঙ্খ চিল। যদি দেখা মেলে গাছে গাছে বানরের দুষ্ট-মিষ্টি লাফালাফি! তাহলে আপনার অনুভূতিটা কেমন হতে পারে?
সর্ষের ভেতর ভূত- এই পুরনো আপ্তবাক্যটি যেন বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি বা বিআরটিএ’র সমার্থক। সর্ষের মধ্যে ভেজাল থাকলে ভূত তাড়াতে সেই সর্ষে যেমন কাজ হয় না, ঠিক একই অবস্থা বিআরটিএ’র। এখানে দালাল ছাড়া কোনো কাজ প্রায় অসম্ভব। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীও স্বীকার করেন তার এই দপ্তরের দুর্নীতির কথা। কেন থামছে না বিআরটিএ’র দুর্নীতি বা দালালদের দৌরাত্ম? বাংলামেইলের পক্ষ থেকে সরেজমিনে এ বিষয়ে চালানো হয় অনুসন্ধান। দেখা যায়, এখানকার কর্মকর্তারাই নিয়োগ দিচ্ছেন দালালদের! যারা তাদের হয়ে ‘কাজ’ করছে মাঠপর্যায়ে।

যেখানে সবাই দালাল!

পাঁচ শতাধিক হকারের দখলে দেশের বৃহত্তম পর্যটন কেন্দ্র কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। সৈকত এলাকায় হকার প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকলেও কোনো কোনো সময় পর্যটকদের চেয়ে হকারদের আনাগোনাই বেশি দেখা যায়। হকারদের কারণে কোনো পর্যটকই সৈকত এলাকায় শান্তিতে ঘুরতে পারছেন না।

হকারের দখলে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান এবং জিয়াউর রহমানকে নিয়ে সমালোচনাকে নিজেদের ‘দীনতা’ বলে মন্তব্য করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম। নটরডেম কলেজে একাদশ শ্রেণীতে পড়াকালীন বন্ধু শিবলীকে নিয়ে তিনি পাকিস্তানবিরোধী আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। কিশোর যোদ্ধা সালামের সে সময় স্বপ্ন ছিল দেশটা একদিন স্বাধীন হবে। নিজেই নিজেদের দেশ চালাবেন। দেশ স্বাধীন হলে মিছিল মিটিংয়ের দরকারও হবে না, রাজপথ গুলিতে রক্তাক্ত হবে না। কিন্তু তার সেই স্বপ্ন এখনো স্বপ্নই রয়ে গেছে। তার মতে, সকলের ব্যর্থতার কারণে রাজনীতি নোংড়া হয়ে গেছে। আশাবাদী মানুষ হলেও মাঝে মধ্যে তিনিও হতাশায় ভোগেন। ভাবেন কাউন্সিলে ঘোষণা দিয়ে যেমন ছাত্র রাজনীতি ছেড়ে ছিলেন, তেমনি রাজনীতি ছাড়ারও ঘোষণা দেবেন। আব্দুস সালাম অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের ডেপুটি মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন। জাতীয় পার্টির হয়ে সংসদ নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। বর্তমানে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। দেশ নিয়ে তার নানা ভাবনার কথা তুলে ধরেছেন বাংলামেইলের কাছে।

মাঝে মধ্যে মনে হয় রাজনীতিটাই ছেড়ে দেই

১৯৯৬ সালে নবাবগঞ্জ সেকশন ঢাল এলাকায় হাসান মাসুদের বড় ভাইকে সাত্তারের তিন ভাই কুপিয়ে হত্যা করে। সেই খুনের প্রতিশোধ নিতে ১৮ বছর পর গত ১৪ ডিসেম্বর দুপুরে ঝিগাতলার তিন মাজার মসজিদ এলাকায় ৪৮ নম্বর ওয়ার্ড যুবদল সভাপতি আফজাল হোসেন সাত্তার ওরফে ‘গালকাটা সাত্তার’কে গুলি করে হত্যা করে গণি নামের এক ভাড়াটিয়া খুনি। আর হত্যাকাণ্ডের এ নীল-নঁকশা জেলে বসেই তৈরি করেন ধানমণ্ডির শীর্ষ সন্ত্রাসী সানজিদুল ইসলাম ইমন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব-২ কে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন সাত্তার হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি হাসান মাসুদ। বৃহস্পতিবার ভোরে রাজধানীর শেওড়াপাড়া এলাকা থেকে র‌্যাবের-২ তাকে গ্রেপ্তার করে। র‌্যাব-২ এর সহকারী পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ বাংলামেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

১৮ বছর পর ভাই হত্যার প্রতিশোধ