রোববার, ০৫ জুলাই ২০১৫ ।

ভাঙাচোরা হলেও গম খাওয়ার উপযোগী

ব্রাজিল থেকে আনা গমের দানা ভাঙা-চোরা, পুচকানো ও পোকাওয়ালা হলেও খাদ্য উপযোগী বলে মত দিয়েছে খাদ্য অধিদপ্তর। রোববার আদালতে জমা দেয়া তদন্ত প্রতিবেদনে এ মত দেয়া হয়েছে। ব্রাজিল থেকে আমাদানি করা গম পচা ও খাদ্য অনুপোযোগী বলে অভিযোগ ওঠার প্রেক্ষিতে এ ব্যাপারে গঠিত তদন্ত কমিটি তদন্তের পর তাদের রিপোর্ট আজ আদালতে জমা দেয়। খাদ্য অধিদপ্তরের মহা-পরিচালকের পক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস এ প্রতিবেদন আদালতে জমা দেন।

গাফফার চৌধুরীর শাস্তি দাবি বিএনপির

আল্লাহর ৯৯টি নাম নিয়ে অবমাননামূলক বক্তব্য দেয়ায় বিশিষ্ট কলামিস্ট আবদুল গাফফার চৌধুরীর শাস্তির দাবি জানিয়েছে বিএনপি। রোববার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন এই দাবি করেন। যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন আয়োজিত ‘‌বাংলাদেশের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক একটি সেমিনারে আবদুর গাফফার চৌধুরী বলেছেন, ‘আল্লাহর ৯৯ টি নাম আছে। আর কাফের দেবতারদেরও ৯৯টি নাম ছিল।

ভর্তি ভোগান্তি নয় ‘উন্নয়নের বেদনা’

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির ভোগান্তিকে ‘উন্নয়নের বেদনা’ বলে উল্লেখ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। রোববার সকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। একইসঙ্গে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি ভোগান্তির কারণে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও দেশবাসীর কাছে দুঃখ প্রকাশ করে মন্ত্রণালয়ের প্রধান হিসেবে ভোগান্তির সব দায় নিজের কাঁধে তুলে নেন তিনি।
জয়ের জন্য খুব বেশি কঠিন কোন লক্ষ্য নয়। ১৪৯। লক্ষ্য ছোট বলেই হয়তো শুরু থেকে খুব আত্মবিশ্বাসী দেখা গেলো তামিমকে। যে কারণে কাইল অ্যাবটের বলে হালকা আউট সুইঙ্গারটি বুঝতে পারলেন না তিনি। ছেড়ে দিলে নিশ্চি ওয়াইড। কিন্তু খেলতে গেলেন এবং ব্যাটের কানায় লাগিয়ে ক্যাচ তুলে দিলেন উইকেটের পেছনে কুইন্টন ডি ককের হাতে। দলীয় ৭ রানে গেল প্রথম উইকেট। আত্মবিশ্বাস দেখাতে গেলেন সৌম্য সরকারও। রয়ে-সয়ে, দেখে-শুনে খেলার চিন্তাটাই যেন উধাও হয়ে হেছে তাদের মাথা থেকে। ক্যাগিসো রাবাদার বাউন্সারকে খেলতে গেলেন চোখ বন্ধ করে। ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ তুলে দিলেন জেপি ডুমিনির হাতে। জায়গায় দাঁড়িয়ে ক্যচটি তালুবন্দী করে নিলেন তিনি। ১৩ রানে পড়ল দ্বিতীয় উইকেট।
আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে দক্ষিণ আফ্রিকা টি২০ অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসিস অনেকটা জোর দিয়েই বলেছিলেন, ‘উপমহাদেশের স্পিন নিয়ে আমরা এখন আর চিন্তিত নই।’ অপরদিকে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স নিয়ে গবেষণার শেষ ছিল না বাংলাদেশ শিবিরে। কোচ হাথুরুসিংহে বলেছিলেণ, তার আউটের জন্য প্রার্থনা করতে পারি শুধু। অপরদিকে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এক বুক সাহস নিয়ে বলেছিলেন, ‘সেও তো মানুষ। তাকে আউট করার জন্য একটি ভালো বলই যথেষ্ট।’ সেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম টি২০ ম্যাচে স্পিন দিয়েই আক্রমণ শুরু করলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এবং প্রথম ওভারেই একটি ভালো বলের ডেলিভারি দিয়ে দিলেন আরাফাত সানি। প্রথম ওভারের শেষ বলেই আরাফাত সানির অফস্ট্যাম্পের ওপর থাকা লেন্থ বল খেলতে গিয়ে কভার পয়েন্টে ক্যাচ তুলে দেন ডি ভিলিয়ার্স। ক্যাচটি তালুবন্দী করতে মোটেও কষ্ট করতে হলো না মাশরাফির।
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের টিম ফরমেশন কি হবে? ম্যাচ শুরুর আগেরদিন এটাই ছিল সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। ভারতের বিপক্ষে যে চার পেসার নিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিল বাংলাদেশ! এবং চার পেসারেই শেষ পর্যন্ত অসাধারণ সাফল্য পেয়েছিল টাইগাররা। বাম হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানে নাকাল হতে হয়েছিল ভারতীয়দের। তাসকিন, রুবেল কিংবা মাশরাফিতেও ভারতকে সমস্যায় পড়তে দেখা গিয়েছিল। বাংলাদেশে আসার আগে দক্ষিণ আফ্রিকার গবেষণায় এ বিষয়টি নতুন করে যোগ করতে হয় যে, বাংলাদেশ এখন পুরোপুরি পেস নির্ভর বোলিং আক্রমণ সাজাতেও সক্ষম। কিন্তু তারা বেশ দ্বন্দ্বে ছিল বাংলাদেশ আসলে বোলিংয়ে কোনটার ওপর সবচেয়ে বেশি জোর দেবে। ফতুল্লায় প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের স্পিনারদের অনায়াসে মোকাবেলা করতে পেরে প্রোটিয়াদের আত্মবিশ্বাস বেড়েছিল এবং হয়তো এটা প্রমান করতে সক্ষম হয়েছিল যে, স্পিন দিয়ে এখন আর ঘায়েল করা যাবে না তাদের।
বার্সেলোনার মেসি আর আর্জেন্টিনার মেসির মধ্যে পার্থক্য কী? এই প্রশ্নের উত্তর একটি শব্দেই অধিকাংশ বলে দেবেন, সাফল্য। হ্যাঁ, বার্সার জার্সি পরলেই সাফল্যের মালা যেভাবে মেসির পায়ে লুটোপুটি খায়, আর্জেন্টিনার জার্সি পরলে সেভাবেই যেন দৌড়ে পালায়। সর্বশেষ কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠেও সেই ‘অভিশাপ’ কাটাতে পারলেন না মেসি। আবারও হেরে গেলেন ফাইনালে এসে। দুটো ছবিই প্রায় এক হয়ে থাকল। ২০১৪ সালের ১৩ জুলাই মারাকানার বিজয় মঞ্চে এসে পরাজিতের মেডেল গ্রহণ করছেন মেসি। তার পাশেই শোভা পাচ্ছিল বিশ্বকাপ ট্রফি। ঠিক এক বছর পর সান্তিয়াগোর এস্টাডিও ন্যাসিওনেলের বিজং মঞ্চে সিলভার মেডেল নিতে এলেন মেসি। পাশেই শোভা পাচ্ছিল লাতিনের সেরা, কোপা আমেরিকার ট্রফি। এত কাছে, তবু কত দুরে। একবারও ওই ট্রফি দুটি ছুঁয়ে দেখার যোগ্য হতে পারলেন না মেসি।
ভেতরে-বাইরে লোকারণ্য। প্রবেশ পথে ক্রেতাদের দীর্ঘ সারি। কেউ ভিতরে প্রবেশ করছেন কেউ হাতভর্তি ব্যাগ নিয়ে হাসিমুখে বের হয়ে আসছেন। ছেলে-বুড়ো সবারই সব ধরনের কেনাকাটাই এখানে সম্ভব। কারণ এটি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সেরা শপিংমল বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স। সেখানে এখন উৎসবের আমেজ। মুসলমানদের প্রধান ধর্মীও উৎসব ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে রমজানের প্রথম থেকেই জমে উঠে এখনকার ঈদের কেনাকাটা। সংসারে সব জিনিস একসঙ্গে পাওয়ার জন্যই বিভিন্ন উৎসবে ক্রেতারা বসুন্ধরা শপিং মলকেই সবচেয়ে বেশি পছন্দের জায়গা মনে করে। এমনকি এখানে মার্কেট করার জন্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকেও আসে মানুষজন।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কর আদায়কারী কর্মকর্তা মো. আব্দুল খালেক। সরকারের একজন দ্বিতীয় শ্রেণীর কর কর্মকর্তা তিনি। যিনি এখন রাজধানী ঢাকার বুকে ৬ তলা ও ৫ তলা বিশিষ্ট তিনটি বাড়ির মালিক। সেই সঙ্গে আছে ব্যক্তিগত ও পারিবারিক ২টি গাড়িসহ কোটি টাকার ব্যাংক ব্যালেন্স। এই বিপুল পরিমাণ সম্পদ উপার্জিত আয়ের চেয়ে বেশি মনে হওয়ায় তার সম্পদ অর্জনের রহস্য উদঘাটনে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকে আসা এক সুনির্দিষ্ট অভিযোগ যথাযথ মনে হওয়ায়, তা অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। এজন্য দুদকের সহকারী পরিচালক মোসা. সেলিনা আক্তার মনিকে অনুসন্ধানী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আউট হয়ে গেলেন মুশফিকুর রহিম

জয়ের জন্য খুব বেশি কঠিন কোন লক্ষ্য নয়। ১৪৯। লক্ষ্য ছোট বলেই হয়তো শুরু থেকে খুব আত্মবিশ্বাসী দেখা গেলো তামিমকে। যে কারণে কাইল অ্যাবটের বলে হালকা আউট সুইঙ্গারটি বুঝতে পারলেন না তিনি। ছেড়ে দিলে নিশ্চি ওয়াইড। কিন্তু খেলতে গেলেন এবং ব্যাটের কানায় লাগিয়ে ক্যাচ তুলে দিলেন উইকেটের পেছনে কুইন্টন ডি ককের হাতে। দলীয় ৭ রানে গেল প্রথম উইকেট। আত্মবিশ্বাস দেখাতে গেলেন সৌম্য সরকারও। রয়ে-সয়ে, দেখে-শুনে খেলার চিন্তাটাই যেন উধাও হয়ে হেছে তাদের মাথা থেকে। ক্যাগিসো রাবাদার বাউন্সারকে খেলতে গেলেন চোখ বন্ধ করে। ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ তুলে দিলেন জেপি ডুমিনির হাতে। জায়গায় দাঁড়িয়ে ক্যচটি তালুবন্দী করে নিলেন তিনি। ১৩ রানে পড়ল দ্বিতীয় উইকেট।

১৪৮ রানে থামল দক্ষিণ আফ্রিকা

আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে দক্ষিণ আফ্রিকা টি২০ অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসিস অনেকটা জোর দিয়েই বলেছিলেন, ‘উপমহাদেশের স্পিন নিয়ে আমরা এখন আর চিন্তিত নই।’ অপরদিকে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স নিয়ে গবেষণার শেষ ছিল না বাংলাদেশ শিবিরে। কোচ হাথুরুসিংহে বলেছিলেণ, তার আউটের জন্য প্রার্থনা করতে পারি শুধু। অপরদিকে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এক বুক সাহস নিয়ে বলেছিলেন, ‘সেও তো মানুষ। তাকে আউট করার জন্য একটি ভালো বলই যথেষ্ট।’ সেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম টি২০ ম্যাচে স্পিন দিয়েই আক্রমণ শুরু করলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এবং প্রথম ওভারেই একটি ভালো বলের ডেলিভারি দিয়ে দিলেন আরাফাত সানি। প্রথম ওভারের শেষ বলেই আরাফাত সানির অফস্ট্যাম্পের ওপর থাকা লেন্থ বল খেলতে গিয়ে কভার পয়েন্টে ক্যাচ তুলে দেন ডি ভিলিয়ার্স। ক্যাচটি তালুবন্দী করতে মোটেও কষ্ট করতে হলো না মাশরাফির।

নতুন নিয়মে প্রথম ফ্রি হিট

মাত্রই কিছুদিন আগে ওয়ানডে এবং টি২০ ক্রিকেটের নিয়মে পরিবর্তন আনে আইসিসি। বলা হয়েছিল বাংলাদেশ-দক্ষিন আফ্রিকা সিরিজ থেকেই প্রবর্তিত হবে সেই নিয়মের। কথা অনুসারেই মিরপুরে বাংলাদেশ আর দক্ষিণ আফ্রিকা টি২০ সিরিজে চালু করা হলো নতুন নিয়মের এবং প্রথম ফ্রি হিট এলো মুস্তাফিজের বল থেকেই। ১৫তম ওভারের খেলা চলছিল তখন। ৩য় বল করতে আসলেন মুস্তাফিজুর রহমান। কোমরের ওপরে ফুলটস দেন তিনি। ফলে আম্পায়ার নো বল ডেকে বসেন। সুতরাং নতুন নিয়মে প্রথম নো বল এবং প্রথম ফ্রি হিট হয়ে গেলো এই ম্যাচ থেকেই। যদিও এই ফ্রি হিট থেকে ফ্যাফ ডু প্লেসিস নিতে পারলেন মাত্র ১টি রান।

‘সবচেয়ে বেশি আন্দোলিত হয়েছি ড.ইউনূসের ছবি তুলে’

যথারীতি স্মিত হেসে তিনি সরলভঙ্গিতে জানালেন, সবচেয়ে বেশি আন্দোলিত হয়েছি ড.ইউনূসের ছবি তুলে। যার পোট্রেট আমি ১৯৭৮ সাল থেকে তোলা শুরু করেছি, এবং এখনো তুলেই যাচ্ছি। উনার সাথে ছবি তুলে আরাম এইজন্য পাই যে, আমি ক্যামেরা ধরলেই তিনি বুঝতে পারেন আমি কি চাই। এতো ব্যস্ততার মাঝেও তিনি আমাকে সেই সময়টাও দেয়ার চেষ্টা করেন।

স্বাদে ভরা পাটিসাপটা

বাঙালির পিঠা পায়েসে রয়েছে দারুণ খ্যাতি। ছোট বড় সব উৎসবে থাকা চাই মজার স্বাদের পিঠা পুলি। সুস্বাদু পুরে ভরা পাটিসাপটা তার মধ্যে অন্যতম। নিজেদের খাওয়া আর অতিথি আপ্যায়নের পাটিসাপটার জুড়ি নেই। রোজার এই সময়ে ইফতারিতেও থাকতে পারে সুস্বাদু পাটিসাপটা। তাই আসুন মজার পাটিসাপটাকে আরও বেশি মজার করতে শিখে নেয়া যাক সহজ রেসিপি।
আগামী ৯ জুলাই থেকে আসন্ন ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি করবে রেলওয়ে। ১৩ জুলাই পর্যন্ত চলবে টিকিট বিক্রি। ঘরমুখো মানুষের নিরাপদ যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার জন্য বিশেষ ট্রেন চালুরও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বাড়তি অতিরিক্ত ৮০ হাজার যাত্রীসহ আড়াই লাখ যাত্রী বহনের টার্গেট নিয়ে প্রতিদিন ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে যেসব ট্রেন চলছে তার সঙ্গে ১৪টি বিশেষ ট্রেন যুক্ত হবে। এসব বিশেষ ট্রেনে ১৬৯ টি কোচ যুক্ত করা হবে। এ নিয়ে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ও সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে কোচ মেরামতের ধুম পড়েছে। এর মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে ৮৬টি এবং সৈয়দপুর রুটে (পশ্চিমাঞ্চল) ৮৩ টি বগি যুক্ত হবে।

পাহাড়তলী-সৈয়দপুরে বগি মেরামতের ধুম

ঈদ উপলক্ষে লঞ্চের অগ্রীম টিকিট বিক্রি শুরু না হলেও ক্যাবিন বুকিং শুরু হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি সময় থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হতে পারে। ঢাকা-বরিশাল, চাঁদপুর, পটুয়াখালীসহ বিভিন্ন রুটে যত লঞ্চ চলে এবার তার চেয়েও বেশি স্পেশাল লঞ্চ চালুর উদ্যোগ নিচ্ছেন মালিকরা। এরইমধ্যে কেরানীগঞ্জসহ বিভিন্ন ডক ইয়ার্ডে লঞ্চে রঙ করা ও মেরামতের কাজ শুরু হয়েছে। রাত-দিন খেটেখুটে এসব লঞ্চ প্রস্তুত করা হচ্ছে দক্ষিণবঙ্গের ঘরমুখি মানুষের ঘরে ফেরার পথে বহনের জন্য। কিন্তু ঈদের এই ঘরে ফেরা কতটা নিরাপদ হবে তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। ফি বছরের লঞ্চডুবির ঘটনায় অসংখ্য প্রাণহানির অভিজ্ঞতাও ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রা থেকে নিবৃত্ত করতে পারছে না যাত্রীদের।

‘আনফিট’ ৫শ’ লঞ্চে স্পেশাল সার্ভিস!

রাজধানীর মতিঝিল থানার (বর্তমান পল্টন থানা) প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল কালাম আজাদ। একাত্তরে জীবন বাজি রেখে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। যুদ্ধচলাকালেই স্থানীয় রাজাকাররা শান্তিনগরে তার ছিমছাম বাড়িটি দখলে নিয়ে নেন। সেসময় হয়তো বাড়িটি ওই মুক্তিযোদ্ধার চোখে নিছকই একটা থাকার জায়গাই ছিল। মুক্তির নেশায় বুদ হয়ে বাড়ির কথা ভুলে গিয়েছিলেন অনায়াসেই। কিন্তু ঝামেলায় পড়েন যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে মাথা গোঁজার সময়। যুদ্ধের পর কিছুদিনের জন্য বাড়িটিতে তিনি বাস করতে পারলেও পুরো বাড়িটি আর দখলে যেতে পারেননি কখনোই। আংশিক দখলে যাওয়া নিজের বাড়িতেই মুক্তির শ্বাস হয়তো নিয়েছেন, কিন্তু বাতাসে পরাধীনতার গন্ধ ছিলই।

ডেভেলপারের দখলে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি

সারি সারি ময়দার বস্তা। পাশেই ময়লা-আবর্জনার স্তূপ। স্যাঁতসেতে পরিবেশ। এমন পরিবেশেই তৈরি হচ্ছে সেমাই্। সেই সেমাই শুকানোও হচ্ছে কারখানার ভেতরে। রাতের গভীরে কারখানার গেটে তালা দিয়ে সে সেমাই ভরা হচ্ছে বিভিন্ন কোম্পানির নাম সম্বলিত প্যাকেটে। এ চিত্র কামরাঙ্গিরচরের কয়েকটি সেমাই কারখানার। এসব ‘ব্রান্ড’ সেমাই যাচ্ছে রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। সরেজমিন ঘুরে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

একই সেমাই বিভিন্ন ব্র্যান্ড নামে বাজারে