Banglamail-img

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবির নিয়োগ বন্ধ করুন

একই সাথে দেখেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনা। যে ব্যক্তি (উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক) ১৫-২০ বছর ধরে এদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করার জন্য দিন-রাত লড়াই করে চলেছেন, তাকে রাজাকার বলা হয়েছে, তাকে দুই ঘণ্টার মধ্যে অব্যাহতি দিতে বলা হয়েছে। 
Banglamail-img

এদেশে জঙ্গিবাদ আজকের ঘটনা নয়

আমাদের দেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ, আমাদের দেশ শান্তির দেশ। কিন্তু কেন এ ধরনের হামলা ঘটলো? আমাদের দেশ সব ধর্মের দেশ। এদেশ ধর্ম নিরপেক্ষ দেশ। এ দেশে সব ধর্মের সমান অধিকার আছে। আমরা সব ধর্মকে সমানভাবে গুরুত্ব দেই। তাহলে কেন আমাদের ওপর আঘাত আসলো? এর হিসেব যদি বের করতে যায় তাহলে বের হয়ে আসে, যারা আমাদের স্বাধীনতায় বিরোধীতা করেছে তারাই এ হামলা ঘটিয়েছে।’   পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল ইসলাম খান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মিজান উদ্দিন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখারুজ্জামান, বাংলাদেশ
Banglamail-img

বেতনের ভাগ না দেয়ায় স্ত্রীকে খুন

সখিনা বেগম একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন। তার স্বামী হাবিবুর রহমান চাকরি করতেন একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে। তারা রাজধানীর বনশ্রীর সি- ব্লকের ৫০১ নম্বর বাসায় ভাড়া থাকতেন। হাবিবের বাড়ি ভোলা জেলা সদরে। নিহত সখিনার প্রতিবেশী আঞ্জুমনারা বেগম জানান, প্রতিদিনের মতো আজো বিকেলে সখিনার চাকরির টাকা নিয়ে হাবিবের সঙ্গে ঝগড়া হয়। এসময় সখিনাকে মারধর করেন স্বামী হাবিবুর রহমান। নির্যাতনের এক পর্যায়ে সখিনা বেগম সজ্ঞা হারিয়ে মাটিতে লুঠিয়ে পড়লে হাবিবুর বাসা থেকে পালিয়ে যান। পরে প্রতিবেশিরা সখিনাকে উদ্ধার করে ঢামে
Banglamail-img

মাজারযাত্রায় ট্রলারডুবি, সাত শিশুসহ নিহত ৯

দুই নৌকার প্রায় দুইশত যাত্রী একটি নৌকায় উঠে। তারা এই নৌকা থেকে কিছু সময় আগে ছেড়ে যাওয়া নৌকায় উঠার চেষ্টা করে ছিলো। অতিরিক্ত যাত্রী হওয়া ও নৌকার ছাদে শিশুরা উল্লাস করায় নৌকা একদিকে ঢাল হয়ে যায়। যার ফলে নৌকাটি উল্টে যায়।
Ads

চাকরি বাঁচাতে মন গললো নিষ্ঠুর প্রেমিকের

Banglamail-img
এই মুরুব্বি আরো বলেন, আগে আমি অনেকবার ফোন করেছি কিন্তু রাশেদুল ধরেনি। আজ সে ফোন ধরেই বিনয়ের সাথে কথা বলেছে। সে এও বলেছে, আমাকে নিয়ে অনলাইনে নিউজ হয়েছে। বিষয়টি আমার অফিসের অনেকেই জেনে গেছে। এভাবে জেনে গেলে আমার চাকরি নিয়ে সমস্যা হবে। এরপর রাশেদুল এই মুরুব্বিকে বলেন, আমি অফিস থেকে বের হয়ে আপনার সঙ্গে কথা বলবো।

‘বাবা তুই যেমনে পারস, আমারে নিয়া যা’

Banglamail-img
নির্যাতনের কারণে সৌদির গৃহকর্তার বাড়ি থেকে পালিয়েছিলেন গত তিন মাস আগে দেশটিতে ভাগ্যান্বেষণে যাওয়া গাজীপুরের শিবপুর গ্রামের জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী আমিনা বেগমের (২৫)।  কিন্তু পালিয়ে গিয়ে শেষ রক্ষা পাননি গৃহকর্তার হাত থেকে। পালানোর কারণে একণ অত্যাচারের মাত্রা আরো বেড়েছে। 

আমার জসীম উদ্‌দীন : হোসেনউদ্দীন হোসেন

Banglamail-img
বেশ কয়েকদিন কবির এই কাব্যগ্রন্থটি হাতে করে নিয়ে হাটে বাজারে বিদ্যালয়ে ঘুরে বেড়িয়েছি। বিদ্যালয়ের বন্ধু-বান্ধবদের দেখিয়ে গর্ব অনুভব করেছি। আমি যে এই গ্রন্থটি পাঠ করেছি এটাই ছিল আমার গর্ব। দিন দশেক পর একদিন বিকেল বেলা স্যারের বাড়িতে গিয়ে বইটি ফেরত দিলাম। স্যার ছিলেন জসীম উদ্‌দীনের ভক্ত। তিনি তাঁর ঘরের মধ্যে ঢুকে জসীম উদ্‌দীননের সোজন বাদিয়ার ঘাট কাব্যগ্রন্থটি এনে আমার হাতে তুলে দিলেন। বললেন, আমি আমার সংগৃহীত এই বইগুলো কাউকে কখনো পড়তে দেইনি। শুধুমাত্র তোমাকেই দিলাম। ‘সোজন বাদিয়ার ঘাট’ কাব্যগ্রন্থটি বারবার নেড়ে চেড়ে দেখতে লাগলাম। মনে হলো, আর একটি স্বর্ণখণ্ড আমি হাতে পেয়েছি। বইয়ের ভেতরের কালো কালো অক্ষর থেকে একটা মন-মাতানো সোদা গন্ধ বাতাসে ভেসে আসতে লাগলো। আমি স্যারের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে উঠে দাঁড়ালাম। স্যার বললেন, এই বইটাও তোমার ভালো লাগবে। পথ ধরে হাঁটতে লাগলাম। পথের দু’ধারে মাঠ, গাছপালা আমার চোখে অপরূপ হয়ে ধরা পড়তে লাগলো। আমি মনে মনে এই মাঠ, এই গাছপালা, এই বিকেল, এই গ্রাম ও দূর দিগন্তের আকাশ নিয়ে ভাবতে ভাবতে পথ অতিক্রম করতে লাগলাম। জসীম উদ্‌দীনকে স্বচোখে দেখার জন্যে মন উতলা হয়ে উঠলো। কবির কাল্পনিক প্রতিকৃতি আমার মানস চোখে ভেসে উঠতে লাগলো। এই কবি, যিনি পল্লী প্রকৃতির রূপকার। তাঁকে নিয়ে নানা রকম চিন্তা আমার মগজে ঘুরপাক খেতে লাগলো।

তিনি ছাত্রলীগনেত্রী, এভাবে বিয়ে করতেই পারেন!

Banglamail-img
দেখে মনে হলো ঠিক যেন বিয়ে বাড়ি কিংবা কমিউনিটি সেন্টার। মরিচ বাতিতে ফটক সাজানো। ভেতরের রাস্তাও একইভাবে জ্বলজ্বল করছে। ছাত্রলীগের এক কেন্দ্রীয় নেত্রীর গায়ে হলুদ উপলক্ষে শুক্রবার সন্ধ্যায় এভাবেই সেজেছিল রাজধানীর গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ ক্যাম্পাস। ধুমধাম করে কলেজ মিলনায়তনে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান করলেন ছাত্রলীগের সহসভাপতি মাসুমা আক্তার পলি। তিনি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকও। কলেজের একাধিক ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আগামী ২৪ জুলাই মাসুমা আক্তারের বিয়ে। এ উপলক্ষে তিনি কলেজের ছাত্রীদের জন্য গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন। অনুষ্ঠানে তার হবু বরও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও দুই পরিবারের অনেক অতিথি অনুষ্ঠানে অংশ নেন। ছাত্রীরা বলছেন, কলেজ হোস্টেলে থাকার নিয়ম অনুযায়ী, কেউ বিয়ে করলে তার সিট কেটে দেয়া হয়। কিন্তু ছাত্রলীগের অনেকে প্রভাব খাটিয়ে বিবাহিত হয়েও হোস্টেলে থাকেন। আর এবার কলেজের মিলনায়তনে বিয়ের আয়োজনই করা হল। পলি ছাত্রলীগনেত্রী বলেই এভাবে একটা মহিলা কলেজ ক্যাম্পাসে বিয়ে করতে পারছেন।

বৃষ্টিতে ভিজে ১২৩ কিমি দীর্ঘ মানববন্ধন

Banglamail-img
বৃষ্টি উপেক্ষা করে লালমনিরহাট বুড়িমারি থেকে তিস্তা ব্রীজ পর্যন্ত দীর্ঘ মানববন্ধন সফল করেছেন স্থানীয়রা। শনিবার (২৩ জুলাই) বেলা ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা, প্রায় দেড় ঘণ্টা সময় সড়কের এক পাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করেছেন স্থানীয়রা। এসময় সড়কের দুপাশ থেকে এসে যোগ দিয়েছিলেন কৃষক, শ্রমিক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, রাজনীতিবিদসহ প্রায় সকল স্তরের মানুষ।

আগামী তিনদিন বাড়তে পারে বৃষ্টিপ্রবণতা

Banglamail-img
শনিবার সকাল ৯টা থেকে আগামী ২৪ ঘন্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আবহাওয়া দৃশ্যপটের সংক্ষিপ্তসারে বলা হয়, মৌসুমী বায়ুর বধিতাংশের অক্ষ পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।
Banglamail-img

ইংল্যান্ডের রান পাহাড়ে চাপা পড়েছে পাকিস্তান

ইংল্যান্ডের রান পাহাড়ে চাপা পড়া পাকিস্তান ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না। ওল্ড ট্রাফোর্ড টেস্টের দ্বিতীয় দিনে লর্ডস জয়ী দলটি ইতোমধ্যে ব্যাকফুটে চলে গিয়েছে। দিন শেষে স্কোরবোর্ডে ৫৭ রান জমা করতেই পাকিস্তানকে হারাতে হয়েছে ৪ উইকেট। তার আগে ইংল্যান্ড জো রুটের ডাবল সেঞ্চুরির (২৫৪) বদৌলতে ১৫২.২ ওভারে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ৫৮৯ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে।
Banglamail-img

আবারও ঘর ভাঙ্গছে তিন্নির?

কিছুদিন আগে ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিন্নির বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ আনেন স্বামী সাদ। ইচ্ছেমতো বাড়ির বাইরে রাত কাটানো, কন্যা আরশীর খোঁজ খবর না রাখা- এসব অভিযোগ তো ছিলোই। সাদের এক বন্ধুর সঙ্গে বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক, নেশা করা- তিন্নির বিরুদ্ধে এসব অভিযোগও ছিলো সাদের ওই স্ট্যাটাসে।
নির্যাতনের কারণে সৌদির গৃহকর্তার বাড়ি থেকে পালিয়েছিলেন গত তিন মাস আগে দেশটিতে ভাগ্যান্বেষণে যাওয়া গাজীপুরের শিবপুর গ্রামের জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী আমিনা বেগমের (২৫)।  কিন্তু পালিয়ে গিয়ে শেষ রক্ষা পাননি গৃহকর্তার হাত থেকে। পালানোর কারণে একণ অত্যাচারের মাত্রা আরো বেড়েছে। 
জামায়াত-শিবির অধ্যুষিত জেলা নীলফামারীতেও একই অবস্থা। জেলা নেতারা কমিটি গঠনের নির্দেশনা পেয়েছেন মঙ্গলবার। যে কারণে এখন পর্যন্ত কমিটি হয়নি। নীলফামারী-২ আসনের এমপি আসাদুজ্জামান নূর ২০ জুলাই সেখানে পৌঁছান। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ বলেন, মঙ্গলবার কেন্দ্রের চিঠি পেয়েছি। আমরা এখন কমিটি গঠনের সব ধরনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছি। 
এভাবে একা থাকা মানে তারা নির্ঝঞ্ঝাটে থাকতে পারছেন এমন নয়। বাইরের লোকেরা এসে তাদের শান্তি নষ্ট করছে।এই শান্ত নিস্তব্ধ গ্রামটির একমাত্র পরিবারটির অশান্তির কারণে হচ্ছে অন্য গ্রামের বাসিন্দারা। সমস্যার কথা বলতে গিয়ে কার্তিক বলেন, ‘আমাদের প্রতি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নজর কম। বিদ্যুৎ নাই, আসার সম্ভাবনাও কম। পুকুরে মাছ ছাড়লে অন্যরা (অন্য গ্রামের লোক) ধরে নিয়ে যায়। আমাদের পৈতৃক কাজ পান চাষের জন্য প্রচুর বাঁশ প্রয়োজন। আর সেই বাঁশ, গাছ কেটে নিয়ে চলে যায়। প্রতিনিয়ত আতঙ্কে থাকতে হয়। যার ফলে নানান সমস্যা ও হয়রানির শিকার হই।’
নিজের ভালোমন্দ বোঝার ক্ষমতাও হয়ে উঠেনি। অথচ এমন অপরিণত বয়সে ধর্ষণের শিকার হতে হচ্ছে শিশুদের। এরপর সমাজের ‘কলঙ্কে’র ঘানি টেনে বেড়ে উঠতে হচ্ছে দিনের পর দিন। সাম্প্রতিক সময়ে দেশে নারীর পাশাপাশি শিশু ধর্ষণের হারও অশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব ধর্ষণের ঘটনা থেকে বিকৃত মানসিকতার পরিচয় ফুটে উঠলেও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার অভাবে এই অপরাধ বাড়ছে বলে দাবি অভিভাবকদের। তবে শিশুদের লালন-পালনে অভিভাবকদের যুগোপযোগী মনোভাবের অভাবের কারণেও এ অপরাধ দমন সম্ভব হয়ে উঠছেনা বলে পাল্টা দাবি আইন ও শিশু বিশেষজ্ঞদের। শিশু অধিকার ফোরামের গত বছর থেকে চলতি বছরের প্রথম চার মাস পর্যন্ত করা একটি প্রতিবেদন দেখা যায়, ২০১৪ সালের তুলনায় ২০১৫ সালে শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতন ও নিপীড়ন বেড়েছে ২২৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। অর্থাৎ ২০১৫ সালে মোট ৫২১ শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। এর মধ্যে ৯৯ শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়। ৩০ শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। ধর্ষণের শিকার ৪ শিশু আত্মহত্যা করে। ২০১৪ সালে ধর্ষণের শিকার হওয়া ১৯৯ শিশুর মধ্যে ২২ শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়েছিল।